ইভিএম চাপিয়ে দেওয়া যাবে না : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশ : ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৯:৫১ | আপডেট : ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:১৫

অনলাইন ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,  আমাদের ঘোষণা ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশে গড়ে তুলবো। নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার তারই একটি পার্ট। ইভিএম নিয়ে আসার জন্য আমিই পক্ষে ছিলাম। এখনও পক্ষে আছি। তবে হ্যাঁ, তাড়াহুড়া করে ইভিএম চাপিয়ে দেওয়া যাবে না। 

তিনি বলেন, ইভিএম একটা নতুন প্রযুক্তি। আমরা টাকা পাঠাচ্ছি অনলাইনে, গরু কিনছি অনলাইনে আমাদের প্রতিটা কাজই অনলাইনের সঙ্গে জড়িত। কাজেই ইভিএম হচ্ছে এ রকম একটি নতুন প্রযুক্তি। পৃথিবীর বহু দেশে এই ইভিএমের ব্যবহার আছে। তবে আমরা পুরোপুরি ইভিএম দিয়ে নির্বাচন করতে চাই না। কিছু কিছু জায়গায় ইভিএম দিয়ে শুরু করতে পারি। আমরা সীমিত আকারে শুরু করতে পারি।

বিমসটেক সম্মেলনে যোগদান শেষে দেশে ফিরে রোববার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, টেকনোলজি আমাদের যেমন সুবিধা দেয়, তেমনি বিপদেও ফেলে। ইভিএম প্র্যাকটিসের ব্যাপার। এটি ব্যবহারের আগে আমাদের পরীক্ষা করে দেখতে হবে। কিছু কিছু জায়গায়, বিশেষ করে সিটি নির্বাচনে ইভিএমে ভোটগ্রহণ করা হয়েছে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সবক্ষেত্রে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের অংশ হিসেবেই ভোট দেওয়ায় ইভিএম প্রবর্তনের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সবচেয়ে সুবিধা হল, যেই মানুষটা যাচ্ছে, একটা টিপ দিয়ে ভোট দিয়ে আসছে এবং সাথে সাথে রেজাল্টটা পেয়ে যাচ্ছে।’

তিনি আরো বলেন, ইভিএম নিয়ে তারা অভিযোগ করবেই, কারণ কারচুপির একটা টেকনিক তাদের জানা আছে। বহু টেকনিক তারা ইলেকশন কারচুপিতে জানে। ইভিএম চালু হলে ব্যালট পেপার একটার বদলে দুটো নিতে পারবে না। সে জন্যে তারা আপত্তি জানাচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, আপনারা জানেন পাকিস্তান আমলে ভোটের কোনও অধিকারই ছিল না। জাতির পিতা আন্দোলন করেই ওয়ানম্যান ওয়ান ভোট আদায় করেছেন।

তিনি আরো বলেন, বিমসটেকের মাধ্যমে আঞ্চলিক সংযোগ বৃদ্ধির জন্য আমরা একমত হয়েছি। সন্ত্রাস, চরমপন্থা দমন, সবার জন্য আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, দারিদ্র্য দূরীকরণ এজেন্ডা ২০৩০ বাস্তবায়নে জোরারোপ করি।  আমরা নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় বলেছি, বাংলাদেশ বিমসটেকের মতো সহযোগিতামূলক প্লাটফর্মের সঙ্গে কাজ করে যাবে।

সংবাদ সম্মেলনে সরকারের মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাবৃন্দ ও বিভিন্ন মহলের সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

পিডিএসও/তাজ