‘কয়লা চুরি বা কোনো দুর্নীতি হয়নি’

প্রকাশ : ২৯ আগস্ট ২০১৮, ১৯:০১ | আপডেট : ২৯ আগস্ট ২০১৮, ১৯:২১

অনলাইন ডেস্ক

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিতে ‘কয়লা চুরি বা কোনো দুর্নীতি হয়নি’ বলে দাবি করেছেন খনির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাবিব উদ্দিন আহমদ। বুধবার বিকেলে দুদক কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময় সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ দাবি করেন। এর আগে সকাল সাড়ে নয়টা থেকে বিকেল সাড়ে তিনটা পর্যন্ত পেট্রোবাংলার ৮ কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক। যাদের সবাই খনির সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তা।

দুর্নীতির এ ঘটনায় মামলার এজাহারে বলা হয়, খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহমেদ কয়লা চুরির এ ঘটনায় জড়িত৷

দুদকের তদন্ত কমিটির জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে খনির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহমেদ বলেন, শুরু থেকেই টেকনিক্যাল লস হয়েছে। সেটাই আমরা প্রমাণ করার চেষ্টা করছি। আসলে এখানে কোনো চুরি হয়নি। তদন্ত সাপেক্ষে ইনশাআল্লাহ সেটাই একদিন প্রকাশ হবে যে, এখানে কোনো দুর্নীতি হয়নি, চুরি হয়নি।

তিনি বলেন, এটা টোটালি একটা টেকনিক্যাল লস। এটাই ইনশাল্লাহ তদন্ত সাপেক্ষে দেশবাসী জানতে পারবে। সেই আস্থা এবং কনফিডেন্ট আমার আছে।... জিনিসটা উড়ে যায়নি।

খনির সাবেক এই কর্মকর্তা দাবি করেন, ২০০৫ সাল থেকে আমাদের যে কয়লা ছিল... এখানে আমাদের ১ দশমিক ৪ শতাংশ সিস্টেম লস হয়েছে। কিন্তু আন্তর্জাতিকভাবে সর্বনিম্ন ২ থেকে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ পর্যন্ত সিস্টেম লস গ্রহণযোগ্য।

সাংবাদিকদের অন্য এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শুরু থেকে সিস্টেম লস পরিমাপের সুযোগ ছিল না।

বুধবার দুদকের মুখোমুখি হয়েছিলেন পেট্রোবাংলার কর্মকর্তা ও খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাবিব উদ্দিন আহমদ, কোম্পানির সেক্রেটারি আবুল কাশেম প্রধানিয়া ও মোশারফ হোসেন সরকার, মহাব্যবস্থাপক (জেনারেল সার্ভিস) মাসুদুর রহমান হাওলাদার, ব্যবস্থাপক (প্রোডাকশন ম্যানেজমেন্ট) অশোক কুমার হালদার, ব্যবস্থাপক (মেইনটেনেন্স অ্যান্ড অপারেশন) আরিফুর রহমান, ব্যবস্থাপক (ডিজাইন, কন্সট্রাকশন অ্যান্ড মেইনটেন্যান্স) জাহিদুল ইসলাম এবং উপব্যবস্থাপক (সেফটি ম্যানেজমেন্ট) একরামুল হক।

পিডিএসও/রিহাব