বাংলায় সাইনবোর্ড না লিখলে এবার লাইসেন্স বাতিল করবে ডিএনসিসি

প্রকাশ | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০২:০৯ | আপডেট: ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৭:৫৩

অনলাইন ডেস্ক

এবার বাংলায় সাইনবোর্ড না লিখলে লাইসেন্স বাতিল করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, স্বাধীনতার ৪৭ বছর পার হয়ে গেলেও এখনও সর্বত্র বাংলা ভাষার ব্যবহার নিশ্চিত হয়নি। এই ভাষার জন্য সংগ্রাম করে জীবন দিতে হয়েছে জাতির সূর্য সন্তানদের। অথচ অফিস-আদালত থেকে শুরু করে সর্বত্রই এখনও ইংরেজি ভাষার দাপট সবচেয়ে বেশি। তাই এই ভাষার মাসে মাতৃভাষাকে যথাযথ সম্মান জানাতে এবার কার্যকর উদ্যোগ নিয়েছে ডিএনসিসি।
ইতোমধ্যেই প্রতিষ্ঠানটির আওতাধীন এলাকায় সব ধরনের সাইনবোর্ড, লিফলেট, ব্যানারে বাংলা লেখার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ইংরেজি থাকলেও সেটি থাকতে হবে বাংলার পাশাপাশি। আর নিষেধাজ্ঞায় কাজ না হলে প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল করার মতো কঠোর সিদ্ধান্তও নিতে পারে ডিএনসিসি। 
জানা যায়, দেশের সর্বস্তরে বাংলা ভাষার প্রচলন নিশ্চিত করতে ২০১৪ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ এক আদেশে দেশের সব সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার, গাড়ির নম্বরপ্লেট, সরকারি দপ্তরের নামফলক এবং গণমাধ্যমে ইংরেজি বিজ্ঞাপন ও মিশ্র ভাষার ব্যবহার বন্ধ করতে সরকারকে ব্যবস্থা নিতে বলেন। সংবিধানের ৩ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রভাষা বাংলা। 
এছাড়া বাংলা ভাষা প্রচলন আইন, ১৯৮৭-এর ৩ ধারায়ও সরকারি অফিস, আদালত, আধা সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে চিঠিপত্র, আইন-আদালতের সওয়াল-জবাব এবং অন্য কাজে বাংলার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। রাজধানীতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স দেওয়া সংস্থা সিটি করপোরেশনের ট্রেড লাইসেন্স (ব্যবসা করার অনুমতি) নেওয়ার সময়ও সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে সাইনবোর্ডে বাংলা ব্যবহারের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেওয়া হয়। অতিরিক্ত একটি সিল দিয়ে ট্রেড লাইসেন্সে লেখা থাকে, ‘সাইনবোর্ড/ব্যানার বাংলায় লিখতে হবে’।
এসব আদেশ কতটুকু বাস্তবায়ন হয়েছে তা ঘর থেকে বের হলেই দেখতে পাবেন। রাজধানীর অধিকাংশ দোকান, শপিং মল, অফিস-আদালতের সাইনবোর্ড, ব্যানার-ফেস্টুন এখনো ইংরেজিতে লেখা হচ্ছে। বিষয়টি সম্প্রতি সিটি করপোরেশনের নজরে এসেছে। ফলে অন্য ভাষায় লেখা সাইনবোর্ড-ব্যানারের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে ডিএনসিসি। বহুদিনের অভ্যাস সহজেই পরিবর্তন হবে না- এমনটি ধরেই এগোচ্ছে সিটি করপোরেশন। প্রথমে উচ্ছেদ অভিযান ও জরিমানার মাধ্যমেই সীমাবদ্ধ থাকতে চায় রাষ্ট্রীয় এই সেবা সংস্থা। তবে এতেও যদি শতভাগ সফলতা না আসে তাহলে কঠোর শাস্তির চিন্তা-ভাবনা করছে সিটি করপোরেশন।
ডিএনসিসির প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা রবীন্দ্র শ্রী বড়ুয়া বলেন, আমাদের দেশে সাইনবোর্ডে ইংরেজি লেখা বহুদিনের অভ্যাস। এটা অতো সহজে পরিবর্তন আসবে না। তাছাড়া ব্যবসা বন্ধ করা আমাদের উদ্দেশ্য না, আমাদের লক্ষ্য সাইনবোর্ড-ব্যানার বাংলায় লেখা। সেজন্য প্রথম আমরা উচ্ছেদ অভিযান ও জরিমানা করছি। এরপরেও যদি সম্ভব না হয়, তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কঠোর ব্যবস্থা কি জানতে চাইলে তিনি বলেন, কাজ না হলে একদম শেষ পর্যায়ে লাইসন্স বাতিলের সিদ্ধান্তও নিতে পারি।

পিডিএসও/মুস্তাফিজ