‘সংবিধান অনুযায়ী ভোটের আগে নির্বাচনকালীন সরকার’

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ২১:২১ | আপডেট : ১২ জানুয়ারি ২০১৮, ২১:৩৮

অনলাইন ডেস্ক

দেশের সংবিধান অনুযায়ী ২০১৮ সালের শেষদিকে একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের আগে নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হবে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের এই মেয়াদের ৪ বছর পূর্তি উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। 

প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করে বলেন, নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দল পরবর্তী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেবে এবং দেশের গণতান্ত্রিক ধারাকে সমুন্নত রাখতে সহায়তা করবে। নির্বাচনকালীন সরকার নির্বাচন কমিশনকে সহায়তা করবে। তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি অনুসন্ধান কমিটির মাধ্যমে নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করেছেন। এই কমিশন ইতিমধ্যে ২টি সিটি করপোরেশন নির্বাচনসহ স্থানীয় পর্যায়ের বেশ কিছু নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করায় জনগণের আস্থা অর্জন করেছে।

ভাষণে আশঙ্কা প্রকাশ করে প্রধনমন্ত্রী বলেন, কোনো কোনো মহল আগামী নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশে অরাজকতা পরিস্থিতি সৃষ্টির অপচেষ্টা করতে পারে। এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে তিনি সকলের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, জনগণ অশান্তি চান না। নির্বাচন বর্জন করে আন্দোলনের নামে জনগণের জানমালের ক্ষতি করবেন-এটা জনগণ মেনে নেবে না।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘স্বাধীনতার ৪৭ বছর পার হতে চলেছে। আমরা আর দরিদ্র হিসেবে পরিচিত হতে চাই না। আমরা বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে বাঁচতে চাই। এসব যদি আপনাদের চাওয়া হয়, তাহলে আমরা সব সময়ই আপনাদের পাশে আছি। কেননা আমরাই লক্ষ্য স্থির করেছি যে ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে প্রতিষ্ঠিত করব। শুধু লক্ষ্য স্থির করেই কিন্তু আমরা বসে নেই। সেই লক্ষ্য পূরণের জন্য আমরা প্রয়োজনীয় কর্মসূচি প্রণয়ন করে সেগুলো বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা অতীতকে আঁকড়ে ধরে থাকতে চাই না; তবে অতীতকে ভুলেও যাব না। অতীতের সফলতা-ব্যর্থতার মূল্যায়ন করে, ভুল-ত্রুটি শুধরে নিয়ে আমরা সামনে এগিয়ে যাব। আমরা উন্নয়নের যে মহাসড়কে যাত্রা শুরু করে সামনে এগিয়ে যাচ্ছি, সেখান থেকে আর পেছনে ফিরে তাকানোর সুযোগ নেই। বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্ম সমৃদ্ধি ও প্রগতির পথে সকল বাধা দূর করার দায়িত্ব গ্রহণ করবে।

আসুন, দলমত-নির্বিশেষে সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে আগামী প্রজন্মের জন্য একটি উন্নত, সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। আগামী প্রজন্ম পাবে সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ। বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা যেন ব্যাহত না হয়, এ বিষয়ে সচেতন হয়ে উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। আমরা বিশ্বসভায় মাথা উঁচু করে চলব। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলব।’

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপি-জামাত জোট সারা দেশে নির্মম সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়েছিল উল্লেখ করে বলেন, নির্বাচনের দিন ৫৮২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুড়িয়ে দেওয়া হয়। হত্যা করা হয় প্রিসাইডিং কর্মকর্তাসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। ২০১৩ থেকে ২০১৫-এই তিন বছরে বিএনপি-জামাত সন্ত্রাসীদের হাতে প্রায় ৫০০ নিরীহ মানুষ নিহত এবং কয়েক হাজার মানুষ আহত হন। প্রায় সাড়ে ৩ হাজার গাড়ি, ২৯টি ট্রেন ও ৯টি লঞ্চ পোড়ানো হয়। ৭০টি সরকারি অফিস ও স্থাপনা ভাঙচুর এবং ছয়টি ভূমি অফিসে আগুন দেওয়া হয়।

এ ছাড়া টানা দুই মেয়াদে ক্ষমতায় থাকার সুফল সম্পর্কে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৪ সালে তাঁর সরকার গঠনের কারণেই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় আছে। একটানা নয় বছর জনসেবার সুযোগ পাওয়ার কারণেই দেশ উন্নত হচ্ছে। জনগণ এর সুফল ভোগ করছেন।

বাংলাদেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা পেয়েছে উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, ২০০৫ সালে মাথাপিছু আয় ছিল ৫৪৩ ডলার। এখন তা ১ হাজার ৬১০ ডলারে উন্নীত হয়েছে। দারিদ্র্যের হার ২০০৫-০৬ অর্থবছরের তুলনায় ২২ শতাংশে হ্রাস পেয়েছে। ওই জিডিপর আকার ছিল ৪ লাখ ৮২ হাজার ৩৩৭ কোটি টাকা। বর্তমানে তা ১৯ লাখ ৭৫ হাজার ৮১৭ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত জিডিপির প্রবৃদ্ধির গড় হার ছিল ৫ দশমিক ৪ শতাংশ। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৭ দশমিক দুই-আট শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে।

ভাষণের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বর্ষপূর্তিতে তিনি জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে এসেছেন। তিনি দল হিসেবে আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করা, ১৯৯৬, ২০০৮ ও ২০১৪ সালে তিন দফা সরকার গঠন করে যে সব উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেন তার বিস্তারিত তুলে ধরেন। 

পিডিএসও/তাজ