করোনার কারণে বাড়ছে হতাশা

প্রকাশ : ০৭ মে ২০২০, ১৭:৪৯

অনলাইন ডেস্ক

মহামারি করোনাভাইরাস মানুষের জীবনযাত্রায় যেমন প্রভাব ফেলেছে, তেমনি ফেলেছে মনোজগতেও। নানা নেতিবাচক খবরে ঘরবন্দি মানুষের দুশ্চিন্তা যেমন বাড়ছে, সেইসঙ্গে বাড়ছে বিষণ্ণতা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ সময় মানসিক সুরক্ষার জন্য প্রয়োজন, বিশেষ পরিকল্পনার। ইতিবাচক চিন্তা ও ধর্মচর্চার দিকে মনযোগের পরামর্শ তাদের।

অদৃশ্য করোনাভাইরাস পাল্টে দিয়েছে দৈনন্দিন জীবনযাত্রার চালচিত্র। কর্মব্যস্ত কোটি মানুষ এখন কার্যত গৃহবন্দি। প্রতিনিয়ত আক্রান্তের সংখ্যা যেমন বাড়ছে, তেমনি বাড়ছে দুশ্চিন্তা। এতে অনেকেই আচ্ছন্ন হচ্ছেন হতাশা ও ভয়ে।

মনরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. ফারজানা রহমান মনে করেন, শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি, এ সময় প্রয়োজন বিশেষ মানসিক সুরক্ষার। বলা হচ্ছে, মানসিক শক্তি বাড়াতে চিন্তা-ভাবনায় আনতে হবে ইতিবাচক পরিবর্তন, প্রয়োজন হলে নিতে হবে চিকিৎসকের পরামর্শ। তবে আশার বার্তাও দিচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা। বলছেন, দুর্যোগসহিষ্ণুতার সাফল্যের ইতিহাস, পথ দেখাবে দীর্ঘমেয়াদে। দুর্যোগকালে মনের জন্য প্রশান্তিকর কাজে বেশি করে সময় দেওয়ার পরামর্শ সবার।

২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর চীনের উহান শহরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। বর্তমানে ২১০টি দেশে এই রোগটির বিস্তার ঘটেছে। উন্নত, উন্নয়নশীল বা অনুন্নত কোনো দেশই ঝুঁকিমুক্ত নয়। পৃথিবীর মোড়ল খ্যাত আমেরিকায় প্রতিদিনই মারা যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। ইতালি, স্পেন, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্যেও মৃত্যু মিছিল আকাশচুম্বী। এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ৩৭ লাখের বেশি মানুষ, মারা গেছে ২ লাখ ৫০ হাজারের বেশি।

পৃথিবীজুড়ে চলছে লকডাউন। করোনা যেহেতু সীমান্ত চেনে না, বরং সর্বত্র অবাধে বিচরণ করছে,বিশেষজ্ঞরা বলেছন, এর প্রতিকার-প্রতিরোধও কোনো একক দেশের পক্ষে সম্ভব নয়। গোটা পৃথিবী এক হয়ে এর সমাধান খুঁজতে হবে। আমরা একের থেকে অন্যজন দূরত্ব বজায় রাখছি কেবল আবারও এক হওয়ার আশায়। এক দেশ থেকে আরেক দেশের সীমান্ত বন্ধ।

তারা বলেন, আমরা ইতালির প্রেসিডেন্টের অসহায় কান্না দেখেছি, দেখেছি তাকে ঊর্ধ্ব আকাশে হাত প্রসারিত করে শূন্য দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকতে, দেখেছি আয়ারল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে মন্ত্রিত্ব ছেড়ে চিকিৎসকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতে, দেখেছি ভারতের আজিম প্রেমজিকে ১ হাজার কোটি রুপি নিয়ে এই দুর্দিনে দুস্থের সেবায় এগিয়ে আসতে। জানি, করোনার কারণে আজ আমাদের জীবন অনেকটাই ‘ঘাসের ডগায় একটি শিশির বিন্দুসম!’ তবু আমি অগণিত মহৎ মানুষের বাসস্থান এই পৃথিবীর মায়ায় আবদ্ধ থেকে করোনা সমস্যার ইতিবাচক সমাপ্তির স্বপ্ন দেখি। 

পিডিএসও/তাজ 

সর্বাধিক পঠিত