সেলফির ফাঁদে বাড়ছে অকাল মৃত্যু

প্রকাশ : ০১ জুলাই ২০১৯, ১৫:৪৪

অনলাইন ডেস্ক

নিজেকে ভালোবাসা ও নিজেকে প্রকাশের উন্মত্ত প্রকাশের ইচ্ছায় পৃথিবীজুড়ে বাড়ছে অকাল মৃত্যু। সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের রাগ-বিষাদ-প্রেম-খুনসুটি সবই জানান দেওয়ার মাধ্যম এক টুকরো ছবি। আর এই ছবির দুনিয়ায় সেলফি দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

সেলফি তুলে তা খুটিয়ে দেখা, পছন্দসই না হওয়া অবধি বারংবার চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া। এবার পছন্দের ছবি ফটো ফিল্টারে এডিট করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সে ছবি পোস্ট করা। লাইক-কমেন্টের বন্যায় ভেসে যাওয়ার এই লোভই অনেক সময় ডেকে আনছে অনাহুত মৃত্যু। আর এক-আধটা নয়, মৃত্যুর সংখ্যাটা নাড়িয়ে দেওয়ার মতো। সারা বিশ্বেই বাড়ছে এই অনাকাঙ্ক্ষিত প্রাণহানি।

অন্তত পরিসংখ্যান তা-ই বলছে। ২০১১ অক্টোবর থেকে ২০১৭-এর নভেম্বর পর্যন্ত শুধুমাত্র সেলফি নিতে গিয়ে গোটা দুনিয়াতে মৃত্যু হয়েছে ২৫৯ জনের। ভারতের ‘জার্নাল অব ফ্যামিলি মেডিসিন অ্যান্ড প্রাইমারি কেয়ার’-এর সমীক্ষা ও তার ফল অনুযায়ী, ওই নির্দিষ্ট সময়ে পৃথিবীতে হাঙরের কামড়ে মৃত্যু হয়েছে মোটে ৫০ জনের।

অর্থাৎ মৃত্যুর অঙ্কে হাঙরের কামড়কে পাঁচ গুণেরও বেশি পেছনে ফেলে দিচ্ছে ‘সেলফাইটিস’ (ঘন ঘন সেলফি তোলার প্রবণতা)। গত ১০ বছরে এই ‘অসুখ’ আরো বেড়েছে বলেই মত মনোবিদদের। মূলত মহিলাদের মধ্যে এই প্রবণতা বেশি দেখা গেলেও সমীক্ষায় প্রকাশ, পুরুষদের মধ্যেও এই আসক্তি ক্রমেই বাড়ছে। অনেক সময় মহিলাদের সেলফি তোলায় সাহায্য করতে গিয়েও মৃত্যু হচ্ছে তাদের।

এর মধ্যে জলে ডুবে মৃত্যু, সড়ক ও রেলপথে দুর্ঘটনায় মৃত্যু এবং শুটিংয়ের সময় ঘটা দুর্ঘটনার সংখ্যাই বেশি। আজ পর্যন্ত ভারতে সেলফির ফাঁদে পড়ে প্রাণ দিয়েছেন প্রায় ১৫৯ জন। এ দেশের প্রায় ১৩০ কোটির বেশি মানুষের মধ্যে প্রায় ৮০ কোটি মানুষই মোবাইল ব্যবহার করেন ও সেলফিতে কমবেশি অভ্যস্ত। ভারতে রেলের ধাক্কায় মৃত্যুর ক্ষেত্রেও অনেক সময় দায়ী থাকে এই সেলফিপ্রেম।

পিডিএসও/তাজ