লাইলাতুল কদরের সন্ধানে

প্রকাশ : ২৭ মে ২০১৯, ১২:৪৩

মাহমুদ আহমদ

আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের বিশেষ রহমতে আজ আমরা পবিত্র মাহে রমজানের একুশতম রোজা অতিবাহিত করার সৌভাগ্য পাচ্ছি, আলহামদুলিল্লাহ। আমরা জানি, একান্ত একাগ্রতা ও প্রচণ্ড নিষ্ঠার সঙ্গে ইবাদত করার বিশেষ তাগিদ নিয়ে আসে রমজানের শেষ ১০ দিন। বিগত বছরে আত্মায় সংগোপনে সঞ্চিত তাবৎ পাপ অপরাধ ও হৃদয়াভ্যন্তরে পুঞ্জীভূত সব পঙ্কিলতাকে ধুয়ে-মুছে সাফ করে সজ্জিত হওয়ার ১০ দিন। আর এ ১০ দিনে মুমিন-মুত্তাকিরা লাইলাতুল কদরের সন্ধানে থাকে।

মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘তোমাদের জীবনে আসা প্রতিটি রমজানের শেষ দশকের কোনো এক বেজোড় রাতে এই সম্মানিত রজনিকে তালাশ করো।’ অর্থাৎ রমজানের ত্রিশটি দিবস অসম্ভব কঠোর সাধনায় অবিরাম আরাধনার পর এ মাসের প্রায় শেষ প্রান্তে সে আরাধক তার কাক্সিক্ষত রাতের সন্ধান লাভ করবে। এটাই হলো রমজানের নিবিড় ইবাদতের মর্মকথা।

মহান আল্লাহপাক বলেন, ‘স্মরণ রেখো, আল্লাহর স্মরণেই হৃদয় প্রশান্তি লাভ করে।’ (১৩:২৮)। মুমিন মাত্রই মাহে রমজানের পবিত্রতায় আল্লাহ স্মরণের মাত্রাকে বহু গুণে বৃদ্ধি করে দেয়, ইবাদতের একাগ্রতাকে আরো বাড়িয়ে দেয়। এমন কোনো পুণ্যের কাজ নেই, যা কি না সে হাতছাড়া করে। তখন তার অন্বেষণ মাত্র একটাই আর তা হলো, লাইলাতুল কদরকে লাভ করা। এ প্রাপ্যতার মধ্যেই সে আত্মার শান্তি আর এ উপার্জনের মধ্যেই সে জীবনের সার্থকতা। প্রতিটি বছর রমজান তার সেই স্বর্গ-সুধা প্রদানের জন্যই আমাদের প্রত্যেককে আহ্বান করে।

আসুন না, আমরা সবাই রমজানের অবশিষ্ট এই দিনগুলো সিয়াম সাধনায় নিবিড়চিত্তে নিবেদিত হয়ে সেই মাহাত্ম্য আহরণে মত্ত হই আর অনেক বেশি কোরআন পাঠ করি। আল্লাহপাক বলেছেন, ‘রমজান সেই মাস যে মাসে কোরআন নাজেল হয়েছে।’ (সুরা বাকারা, আয়াত : ১৮৫)। সুতরাং রমজানের অবশিষ্ট দিনগুলো রোজা পালন এবং ইবাদতের সঙ্গে কোরআন পাঠ করা প্রতিটি মুসলমানের জন্য অতীব পুণ্যের কাজ।

আত্মাকে ঐশী সাজে সাজানোর এক বিশেষ সময়। তবেই হাশরের দিন রমজান ও কোরআন এ বলে আমাদের সুপারিশ করবে, রোজা বলবে, ‘হে খোদা! আমি তাকে পানাহার এবং কু-প্রবৃত্তি হতে নিবৃত্ত রেখেছি, এ কারণে তুমি তার জন্য আমার সুপারিশ গ্রহণ করো। আর কোরআন বলবে, আমি তাকে রাতে নিদ্রা থেকে বিরত রেখেছি এবং তাকে শুইতে দিইনি, সুতরাং এ কারণে তুমি তার জন্য আমার সুপারিশ কবুল করো।’ (বাইহাকি)। এ দ্বিবিধ ইবাদতে আমরা যত নিবিড়ভাবে নিবিষ্ট হব, রমজানের এই শেষ দশক আমাদের জন্য ততই কল্যাণকর হবে।

এ ছাড়া রমজানের এই শেষ দশকেই রয়েছে আত্মার নাজাতের প্রতিশ্রুতিসহ লাইলাতুল কদরের উপহার। এমনিভাবে বিভিন্ন ইবাদতে খোদা মানুষের আত্মার মঙ্গলার্থে নানা উপায়ে মজুদ রেখেছেন তার অনন্যসব অবদান। এসব ব্যবস্থাদি মানুষের প্রতি খোদার অনুকম্পা প্রদর্শনেরই প্রমাণ। তাই আমাদের সবার উচিত হবে, খোদা সকাশে ধরনা দিয়ে সেসব অনুকম্পাদি আহরণ করা। নয়তো জীবন হবে মূল্যহীন। আমরা তো কোনোভাবেই প্রত্যাশা করতে পারি না, আমাদের জীবনে আবার এ রমজান ফিরে আসবে। আবার এর তৃতীয়াংশের অবদান লাভ করতে পারব।

তাই আমাদের প্রত্যেকের স্বীয় আত্মার নাজাতের জন্য এখনই ক্রন্দনে রত হয়ে যাওয়া উচিত। এই দশকে আমাদের ইবাদত-বন্দেগিতে এমন পবিত্র পরিবর্তন ঘটাতে হবে, যাতে আমাদের চূড়ান্ত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারি।

পিডিএসও/তাজ