টাঙ্গাইলে শিশু ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় যুবকের মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশ : ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৫:৩৪

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
প্রতীকী ছবি

টাঙ্গাইলের মধুপুরে ৮ বছরের শিশু বিথী ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় এক যুবককে মৃত্যুদণ্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এই রায় ঘোষণা করেন। 
দণ্ডিত কামরুল ইসলাম (২৪) মধুপুর উপজেলার ভুটিয়া গ্রামের মো. সাবাশ আলীর ছেলে। 

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি একেএম নাছিমুল আক্তার জানান, ২০১৪ সালের ১৯ মে বিকেল ৫টার দিকে মধুপুরের ভুটিয়া গ্রামের আবুল কালামের শিশুকন্যা বিথীকে (৮) একই গ্রামের সাবাশ আলীর ছেলে কামরুল ইসলাম (২৪) গাছ থেকে লিচু পেরে দেওয়ার কথা বলে ফুসলিয়ে ডেকে নিয়ে যায়। পরে আকরাচালা বল মাঠের পাশে জঙ্গলে নিয়ে কামরুল বিথীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে। 

বিথীকে খোঁজাখুজির পর না পাওয়া গেলে পরিবারের লোকজন কামরুলকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জানায় বিথী ঢাকায় গেছে। পরে পুলিশ কামরুলকে নিয়ে ঢাকায় যায়। সেখানে বিথীকে না পেয়ে পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে কামরুল পুলিশকে জানায় সে বিথীকে ধর্ষণ ও হত্যা করে ভুটিয়া গ্রামের আকরাচালা বল মাঠের পাশে জঙ্গলে পাতা দিয়ে তার লাশ ঢেকে রেখেছে। পুলিশ সেখান থেকে নিহত শিশুর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায়। 

এদিকে ঘটনার পরদিন ২০মে নিহত শিশুর পিতা আবুল কালাম বাদী হয়ে মধুপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণ করে হত্যার অপরাধে কামরুলকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। গ্রেফতারকৃত কামরুল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেয়। আসামীর উপস্থিতিতে বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এই রায় ঘোষণা করেন। 

পিডিএসও/এআই