পশ্চিমবঙ্গে কনটেনমেন্ট জোনে ফের লকডাউন

প্রকাশ : ০৭ জুলাই ২০২০, ২০:২৮

পার্থ মুখোপাধ্যায় (কলকাতা)

৯ জুলাই থেকে পশ্চিমবঙ্গে ফের লকডাউন শুরু হতে যাচ্ছে। উর্ধ্বমূখী করোনা গ্রাফ, কাজেই পশ্চিমবঙ্গে সংক্রমণ ঠেকাতে শুধু কনটেনমেন্ট জোনই নয়, বাফার জোনেও লকডাউন কড়াকড়ি করার নির্দেশিকা জারি করেছে রাজ্য সরকার। স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার থেকে কনটেনমেন্ট জোনে লকডাউন কার্যকর হবে। তবে আগের মতো তিনটি জোন নয়, এবার শুধু কনটেনমেন্ট জোনেই লকডাউন চলবে। রাজ্যে বাড়তে থাকা করোনা সংক্রমণ ঠেকাতেই মঙ্গলবার বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।কনটেনমেন্ট জোনে বন্ধ থাকবে সমস্ত দোকানপাট। শুধুমাত্র অত্যাবশ্যক পণ্যের দোকান খোলা থাকবে।

কনটেনমেন্ট জোনের আওতায় যে সমস্ত সরকারি অফিস পড়ছে, তাও নতুন করে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অর্থাৎ এই সমস্ত অফিসে আপাতত কর্মীদের আসা নিষেধ।কনটেনমেন্ট জোনে চলবে না কোনও যানবাহন। কখন কীভাবে কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা বাড়ানো হবে, তা ঠিক করবে প্রশাসন।

প্রকাশিত নির্দেশিকা অনুযায়ী, ৯ জুলাই বিকেল ৫টা থেকে অনির্দিষ্ট কালের জন্য জারি থাকবে লকডাউন। জরুরি পরিষেবা ছাড়া সমস্ত কাজ বন্ধ থাকবে এই এলাকাগুলিতে। বন্ধ থাকবে সমস্ত সরকারি এবং বেসরকারি অফিস।

জানা গেছে, রাজ্য প্রশাসনের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে সাতটি জেলা। সেগুলো হল কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, শিলিগুড়ি, মালদা এবং দুই চব্বিশ পরগনা। সোমবার এসব জেলার জেলা শাসকদের কাছে লকডাউন নিয়ে প্রস্তাব পাঠাতে বলেন মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা। সেই অনুযায়ী জেলাগুলি নিজেদের এলাকার পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে রিপোর্ট পাঠিয়েছে। ওই এলাকায়  সরকারি এবং বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে। চলবে না গাড়ি। কল-কারখানা, মার্কেট কমপ্লেক্স, ব্যবসা বাণিজ্যেও নিষেধাজ্ঞা থাকবে। তবে জরুরি পরিষেবার ক্ষেত্রে ছাড় মিলবে। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পাওয়া যাবে। ওই এলাকাগুলিতে যাতে নিয়ম মানা হয়, সে কারণে পুলিশ এবং প্রশাসনের কড়া নজরদারি থাকবে ২৪ ঘণ্টাই।

গত কয়েক দিনে দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশই বাড়ছিল। আক্রান্তের সংখ্যা আটশোর ঘরে পৌঁছে গিয়েছিল। রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২২ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। মৃত্যু হয়েছে ৮৬১ জনের। এই সময়ে কড়া হাতে পরিস্থিতি মোকাবিলা না করা গেলে, তা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে বলে মনে করছেন চিকিৎসকেরা। সে কারণে ফের রাজ্যে লকডাউন ঘোষণা করা হল।

সূত্রের খবর, ১৪ দিনের লকডাউনের প্রস্তাব থাকলেও ১০ দিন পর পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা হবে। পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তারপর। তবে, তার আগে কনটেনমেন্ট জোনকে আরও বৃদ্ধি করে সম্পূর্ণ লকডাউনের পথে হাঁটছে রাজ্য। ইতিমধ্যে কলকাতায় বেশ কয়েকটি এলাকায় লকডাউনের বিধি নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। সিল করে দেওয়া হয়েছে বহুতল। বিভিন্ন রাস্তায় নতুন করে ব্যারিকেডও বসেছে। এ দিন কলকাতার পুলিশের কর্তাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেন পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম।

পিডিএসও/এসএম শামীম