জমি-ব্যাংকের কাগজ নাগরিকত্বের প্রমাণ নয়

প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৯:৪৯

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা

জমির কাগজ, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট স্টেটমেন্ট বা প্যান কার্ড নাগরিকত্বের প্রমাণ হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না বলে নির্দেশ দিয়েছে গুয়াহাটি হাইকোর্ট।

আসামের এক মহিলাকে ট্রাইবুনাল বিদেশি হিসেবে চিহ্নিত করায় হাইকোর্টে আবেদন করেছিলেন তিনি। কিন্তু সেখানেও তার আবেদন খারিজ হয়ে গিয়েছে।জাবেদা বেগম নামে ওই মহিলা তার বাবা-মার সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নথিপত্রের মাধ্যমে প্রমাণ করতে পারেননি।তিনি তার ব্যাংকের কাগজ, জমির দলিল ও প্যান কার্ড নাগরিকত্বের প্রমাণ হিসেবে আদালতে দাখিল করেছিলেন। কিন্তু এর কোনোটিই নাগরিকত্বের প্রমাণ নয় বলে জানিয়ে দিয়েছে গুয়াহাটি হাইকোর্ট।

গত বছর অগস্টে প্রকাশিত হওয়া এনআরসির চূড়ান্ত তালিকায় ১৯ লক্ষ মানুষের নাম বাদ পড়ে। তবে নিজেদের নাগরিকত্ব প্রমাণ করতে এরা প্রথমে ট্রাইব্যুনাল, তার পরে হাইকোর্ট এবং পরে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করতে পারবেন। সব আইনি সাহায্য শেষ না হওয়া পর্যন্ত কাউকে ডিটেনশন ক্যাম্পে পাঠানো হবে না বলে জানিয়েছে প্রশাসন। আসামের এনআরসি কর্তৃপক্ষ অবশ্য জমি ও ব্যাংকের কাগজ নাগরিকত্বের প্রমাণ হিসেবে গ্রহণ করে।

এদিকে, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে দিল্লির শাহিনবাগের ঢঙে দক্ষিণ ভারতের চেন্নাইয়েও শুরু হয়েছে প্রতিবাদ। প্ল্যাকার্ড হাতে দেখা বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন প্রতিবাদকারীরা। সেই প্রতিবাদ ম়ঞ্চেই নিজেদের বিয়ে সেরে ফেলেছেন এক যুগল। সদ্য বিবাহিত যুগলের নাম সুমায়া ও শাহিন শাহ।  সেখানে সুমায়াকে দেখা যাচ্ছে জরির কাজ করা লাল রঙের শাড়িতে। শাহিন পরেছিলেন মেরুন রঙের পোশাক। বাড়ির বড়দের অনুমতি নিয়েই সেখানে তারা বিয়ে করেছেন বলে জানা গেছে।বিয়ের পর স্থানীয় ইমাম ওই যুগলের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন সেখানে উপস্থিত অন্যান্যদের।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ছবিতে দেখা যাচ্ছে, বিয়ের সাজেই প্ল্যাকার্ড হাতে বসে রয়েছেন তারা। ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে উত্তর চেন্নাইয়ের ওল্ড ওয়াসারমনপেটে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে চলছে বিক্ষোভ।নেট দুনিয়ায় এই প্রতিবাদ মঞ্চের নাম দেওয়া হয়েছে চেন্নাইয়ের শাহিনবাগ।

 পিডিএসও/তাজ