নাগরিকত্ব বিলে সমর্থন নয় : শিবসেনা

প্রকাশ : ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ২০:১০

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে লোকসভায় সমর্থন জানালেও রাজ্যসভায় তার দল ভোট দেবে কি না, তা পুনর্বিবেচনা করার ইঙ্গিত দিয়েছেন শিবসেনা সুপ্রিমো উদ্ধব ঠাকরে। তিনি জানিয়েছেন, এই বিলের কিছু বিষয় স্পষ্ট না হলে নরেন্দ্র মোদি সরকারের দিকে তারা সমর্থনের হাত বাড়াবেন কি না, তা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করবেন।

সোমবার মধ্যরাতে লোকসভায় ভোটাভুটিতে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলকে সমর্থন করেছে এনডিএ সরকারের এক সময়ের শরিক শিবসেনা। তবে এবার সম্পূর্ণ বিপরীত সুর শোনা গেছে শিবসেনা সুপ্রিমোর মুখে। সাংবাদিকদের উদ্ধব ঠাকরে বলেছেন, এই বিল নিয়ে শিবসেনা বেশ কিছু পরামর্শ দিয়েছে, রাজ্যসভায় পেশের আগে তা নিয়ে স্পষ্ট ব্যাখ্যা না পেলে বিলে সমর্থন করা হবে না। বিল নিয়ে পুনর্বিবেচনা করা ছাড়াও বিজেপির বিরুদ্ধে কড়া মন্তব্যও করেছেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে।

তার কথায়, বিজেপির বিভ্রম হতে পারে যে, তাদের সঙ্গে যারা সহমত পোষণ করেন না, তারাই দেশদ্রোহী। এবং এটাও একটা বিভ্রম যে, একমাত্র বিজেপিই দেশের জন্য ভাবে। এর আগে লোকসভায় বিল পেশের সময় নিয়েও শিবসেনার মুখপত্র সামনা-র সম্পাদকীয়তে অভিযোগ তোলা হয়েছিল ,বিলের আড়ালে বিজেপি আসলে ভোট ব্যাংকের রাজনীতি করছে। এমনকি, এই বিল যে দেশের স্বার্থবিরোধী, তাও দাবি করা হয়েছিল ওই সম্পাদকীয়তে।

অন্যদিকে, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে তীব্র আপত্তি জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এই বিল মানবাধিকার চুক্তি লঙ্ঘন করছে বলে অভিযোগ করে তিনি বলেছেন, নাগরিকত্ব বিল আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের সব নিয়ম এবং পাকিস্তানের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি লঙ্ঘন করছে।প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সরকার ও রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘকে আক্রমণ করে তিনি বলেছেন, হিন্দু রাষ্ট্র নকশারই অংশ এই নাগরিকত্ব বিল।

অন্যদিকে, নাগরিকত্ব বিল নিয়ে আন্তর্জাতিক চাপের মুখেও পড়তে হয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে। তার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা চেয়েছে আমেরিকার আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা কমিশন। ইউএস কমিশন ফর ইন্টারন্যাশনাল রিলিজিয়াস ফ্রিডম বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, নাগরিকত্ব বিল লোকসভার ছাড়পত্র পেয়ে যাওয়ায় খুবই সমস্যা তৈরি হয়েছে। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছে আমেরিকার হাউস অফ ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটিও। এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে ভারত।

বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র রবিষকুমার এক বিবৃতিতে বলেছেন ,ইউএসসি আই আর এফ-র এই দাবি পুরোপুরি ভুল। পক্ষপাতদুষ্ট মন্তব্য করা হচ্ছে, বিষয়টি সম্পর্কে ভালোভাবে না জেনেই এমনটা বলা আছে। এই ব্যাপারে হস্তক্ষেপের কোন অধিকার নেই ,আমেরিকার আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা সংক্রান্ত কমিশনের।

পিডিএসও/তাজ