দিল্লিতে পুলিশের বেনজির বিক্ষোভ, অস্বস্তিতে প্রশাসন

প্রকাশ : ০৫ নভেম্বর ২০১৯, ২০:০০

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা

বিচার চাইতে ধরনায় দিল্লিতে খোদ পুলিশ। রাজধানীর পুলিশ কর্মীদের বিক্ষোভ উত্তাল দিল্লি পুলিশের প্রধান কার্যালয়। শনিবার দিল্লির তিস হাজারি আদালতে আইনজীবীদের হাতে মার খেয়ে দিল্লি পুলিশের কর্মীরা বিক্ষোভ দেখান সদর দফতরের সামনে। তাদের ওই বিক্ষোভকে সমর্থন করেছেন আইপিএসদের সংগঠন।

ঘটনার সূত্রপাত ২ নভেম্বর। দিল্লির তিসহাজারি আদালতের পার্কিং এরিয়ায় এক আইনজীবীর গাড়িতে পুলিশের গাড়ির ধাক্কার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক হিংসা ছড়িয়ে পড়ে আদালত এবং পার্শ্ববর্তী এলাকায়। কমপক্ষে ২০ জন পুলিশকর্মী আহত হন আইনজীবীদের হামলায় —এমনটাই পুলিশ কর্মীদের অভিযোগ। উত্তেজিত আইনজীবীরা ভাঙচুর চালান একের পর এক পুলিশের গাড়িতে। আগুন পর্যন্ত ধরিয়ে দেন।

আইনজীবীদের পাল্টা অভিযোগ, কয়েকজন পুলিশকর্মী এক নিরস্ত্র আইনজীবীকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়, পুলিশের গাড়িতে তুলে ব্যাপক মারধরও করে।ওই ঘটনার পর থেকেই দিল্লির অন্যান্য আদালতে কর্মবিরতি শুরু করেন আইনজীবীরা। এরপর দিল্লির সাকেত এবং করকরডুমা আদালতে আইনজীবীদের হাতে পুলিশের আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা ঘটে। সোমবারই একটি ভিডিও প্রকাশ্যে আসে, যেখানে দেখা যায়, বাইকে আরোহী এক পুলিশকর্মীকে রাস্তায় আটকাচ্ছেন আইনজীবীরা। এরপরই শুরু হয় এলোপাথাড়ি মারধর।কোনো মতে বাইক ঘুরিয়ে পালিয়ে যান ওই পুলিশকর্মী।

পুলিশের ওপর একই রকম হামলার ঘটনা ঘটে করকরডুমা আদালতেও। দিল্লি পুলিশের নিচুতলার কর্মীদের অভিযোগ, পরপর উর্দির উপর আক্রমণ নেমে আসার পরও কোবো ব্যবস্থা নেননি দিল্লি পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকরা। অভিযোগ, বাহিনীর সদস্যদের পাশে থাকার পরিবর্তে নীরব দর্শকই থেকেছে তাদের উঁচু তলা।

এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ্যে আসতে থাকে তিস হাজারি আদালতের একের পর এক ভিডিও ফুটেজ।যেখানে দেখা যাচ্ছে, আইনজীবীরা কিভাবে আদালতের লকআপের মধ্যে জোর করে ঢোকার চেষ্টা করছেন। বাধা দেওয়ায় মাটিতে ফেলে মারা হচ্ছে পুলিশকর্মীদের। সোশ্যাল মিডিয়ায় পরপর এ ধরনের ভিডিও প্রকাশ্যে আসার পরই সামাজিক মাধ্যমে প্রতিবাদের ডাক দেওয়া হয়। বেশ কয়েকজন পুলিশ আধিকারিক এবং কর্মীবাহিনীর শীর্ষ আধিকারিকদের প্রকাশ্যে দোষারোপ করাও শুরু করেন।

ওই ঘটনায় প্রবল ক্ষুব্ধ দিল্লির পুলিশ মহল। মঙ্গলবার সকালেই বিক্ষাভরত পুলিশকর্মীরা দাঁড়িয়ে পড়েন দিল্লি পুলি সদর দফতরের সামনে। তাদের হাতে ছিল রক্ষকদের বাঁচান, ‘হাউ ইজ দ্যা জোশ : লো স্যার’ লেখা পোস্টার। স্লোগান উঠেছে ,‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস, সিপি সাহাব বাহার আও’।ক্ষুব্ধ পুলিশ কর্মীদের শান্ত করতে বেরিয়ে আসেন দিল্লি পুলিসের কমিশনার অমূল্য পট্টনায়ক।

বিক্ষোভরত পুলিশকর্মীদের তিনি বলেন, আশাকারি আপনারা শান্তি বজায় রাখবেন। কয়েকদিন ধরে দিল্লির পুলিসের একটা পরীক্ষা চলছে।অতীতেও এই ধরনের পরিস্থিতি আপনারা দক্ষাতার সঙ্গে সামাল দিয়েছেন। এটাও সেরকমই এক পরিস্থিতি। এতদিন আপনারা আইন রক্ষায় কাজ করেছেন। এবারও তা করবেন বলে আশা করি।এদিকে, ওই বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে দিল্লির আইটিও এলাকায় যান চলাচল জট পাকিয়ে যায়। গোটা বিষয়টি জানতে চেয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

পিডিএসও/তাজ