বিক্ষোভে উত্তাল লেবানন, ৪ মন্ত্রীর পদত্যাগ

প্রকাশ : ২০ অক্টোবর ২০১৯, ১১:১০

অনলাইন ডেস্ক

লেবাননে বাড়তি কর আরোপ প্রস্তাবের প্রতিবাদে শুরু হওয়া বিক্ষোভটি গণবিক্ষোভে রূপ নিয়েছে। ফলে উত্তাল হয়ে উঠেছে লেবাননের রাজপথ। এদিকে, দেশটির জোট সরকারে ভাঙন দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি-র দীর্ঘদিনের মিত্র খ্রিস্টান ডানপন্থী দল লেবানিজ ফোর্সেস পার্টি জোট সরকারের মন্ত্রিসভা ত্যাগের ঘোষণা দিয়েছে ।

লেবানিজ ফোর্সেস পার্টি গণবিক্ষোভের তৃতীয় দিনে শনিবার নিজেদের এমন সিদ্ধান্তের কথা জানায়। দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ইতোমধ্যেই পদত্যাগ করেছেন লেবানিজ ফোর্সেস পার্টির ৪ মন্ত্রী।

লেবাননে হোয়াটসঅ্যাপ এবং একই ধরনের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপসগুলোতে কর আরোপ প্রস্তাবের প্রতিবাদে ১৭ অক্টোবর থেকে এই বিক্ষোভ শুরু হয়।

বিক্ষোভকারীরা এ ধরনের কর আরোপের তীব্র সমালোচনার পাশাপাশি জনগণের ক্রয়ক্ষমতা কমে যাওয়া এবং জীবনমানের অবনতির জন্য প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি-র সরকারের পদত্যাগের দাবিতে আওয়াজ তোলেন।

হাজার হাজার মানুষ প্রধানমন্ত্রীর দফতর এবং পার্লামেন্ট ভবন সংলগ্ন এলাকায় বিক্ষোভে অংশ নেন । এ সময় তারা সরকারবিরোধী নানা স্লোগান দেয়। শুধু প্রধানমন্ত্রীর দফতরই নয়; তার আবাসিক ভবনের বাইরেও বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এক বছরেরও কম সময় আগে ক্ষমতায় আসা হারিরি-র জোট সরকারের জন্য এ বিক্ষোভকে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা হচ্ছে।

ইতোমধ্যে গণবিক্ষোভের তীব্রতায় কানাডা ও অস্ট্রেলিয়া তাদের দূতাবাস বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে। উভয় দেশই জানিয়েছে, পরিস্থিতি শান্ত না হওয়া পর্যন্ত দূতাবাস বন্ধ থাকবে। এছাড়া, সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশের দূতাবাসের পক্ষ থেকে নিজ নিজ দেশের নাগরিকদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, হোয়াটসঅ্যাপ এবং একই ধরনের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপসগুলোতে কর আরোপ প্রস্তাবের প্রতিবাদে এ গণবিক্ষোভ শুরু হলেও এখন তা আর আগের দাবিতে সীমাবদ্ধ নেই। লেবাননের পুরো রাজনৈতিক ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর দাবি জানাচ্ছে বিক্ষোভকারীরা।

পিডিএসও/তাজ