এই প্রথম কাশ্মীরে ভারতের জাতীয় পতাকা

প্রকাশ : ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১৭:৪৯

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা

কাশ্মীরে প্রথমবারের মতো এমন একটি দিন এলো। ৩৭০ ধারা রদ হওয়ার পর এই প্রথম কাশ্মীরের সরকারি অফিসগুলি থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে জম্মু-কাশ্মীরের নিজস্ব পতাকা। আর সেই জায়গায় উড়তে শুরু করেছে ভারতের জাতীয় পতাকা। জম্মু কাশ্মীরের প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়েছে, এবার থেকে কাশ্মীরের সরকারি ভবনগুলিতে ভারতের জাতীয় পতাকাই দেখা যাবে। ৩৭০ ধারা রদ হওয়ার পরও বেশ কিছুদিন কাশ্মীরে সরকারি ভবনগুলিতে তাদের নিজস্ব পতাকা লাগানো ছিল। গত সপ্তাহ থেকেই সেগুলি আস্তে আস্তে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছিল। অবশেষে রোববার সমস্ত পতাকা সরে গিয়ে সেই জায়গায় উড়তে শুরু করেছে ভারতের জাতীয় তেরঙা পতাকা। এতদিন জম্মু-কাশ্মীরের নিজস্ব পতাকা ভারতের জাতীয় পতাকার সমমর্যাদা পেত। ১৯৫২ সাল থেকে জম্মু-কাশ্মীর সরকার আলাদা পতাকার অধিকারী হয়েছিল৷ অন্তর্ভুক্তি চুক্তির সঙ্গেই কাশ্মীরের তরফে পৃথক পতাকা রাখার বিষয়টিও স্থান পেয়েছিল৷ কিন্তু ৩৭০ ধারা রদ হওয়ার পর থেকে আর সেই বিষয়টির কোনও জায়গা নেই। 

অন্যদিকে, কাশ্মীরে ধীরে ধীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে। উপত্যকার বেশ কিছু অঞ্চলে ল্যান্ডলাইন টেলিফোন সার্ভিস স্বাভাবিক হয়ে গেছে বলে জানা গেছে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপত্যকার বেশ কিছু জায়গায় আবার নতুন করে ল্যান্ডলাইন ব্যবস্থা বসানো হচ্ছে। আর তারপরেই শ্রীনগরসহ বিস্তীর্ণ অঞ্চলে শনিবার সন্ধ্যার পর থেকে টেলিফোনে যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক হয়েছে বলেও জানা যায়। আরও বেশ কিছু জায়গায় নতুন করে টেলিফোনের লাইন বসছে।

রাজ্যের মুখ্যসচিব রোহিত কানসল জানিয়েছেন, এক সপ্তাহের মধ্যেই ৮টি এক্সচেঞ্জের ৫৩০০ ফোন সচল হয়ে যাবে। তবে উপত্যকার নানান অঞ্চলে ইন্টারনেট ব্যবস্থা এখনও সেই আগের মতোই। এখনও চলছেনা বিএসএনএল-এর ব্রডব্যান্ড এবং প্রাইভেট কানেকশন।

পুলিশসূত্রে জানা গেছে, ৩৭০ ধারা বিলোপের পর ২০ দিন কেটে গেলে এখনও অবধি বাজার থেকে দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। বাস বা গাড়িও সেরকমভাবে চলছে না বললেই চলে! এদিকে, কাশ্মীর উপত্যকায় রোববার টানা ২০ দিনে পড়ল এই অচলাবস্থা। ৫ আগস্ট জম্মু ও কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিলের পর ও  জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যকে ২টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাঙার পর ফোন ও ইন্টারনেট লাইন কেটে দেওয়া হয়।

এর আগে শনিবার জম্মু-কাশ্মীরে ঢুকতে না পেরে উপত্যকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয় বলে মন্তব্য করেছিলেন বিরোধী দল কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধী। রাহুল গান্ধী-সহ বিরোধী নেতাদের শ্রীনগর থেকেই ফেরত পাঠিয়ে দেয় জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন। দিল্লিতে ফিরেই জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসনকে আক্রমণ করেছিলেন প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি। অন্যদিকে, জল্পনা ছড়িয়েছে, ওষুধের অভাব দেখা দিয়েছে কাশ্মীরে। তবে সেই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসন। ডিপার্টমেন্ট অব ইনফরমেশন অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, উপত্যকার অধিকাংশ দোকান চালু রয়েছে। শ্রীনগরে মোট ১১৬৬ দোকানের মধ্যে খুলেছে ১১৬৫টি। সরকারি ও বেসরকারি ওষুধের দোকানে পাওয়া যাচ্ছে মোট ৩৭৬টি ওষুধ। উপত্যকায় ৬৫ শতাংশ দোকানই খোলা। ওষুধের জোগান ঠিক রাখার জন্য চণ্ডীগড় ও জম্মুতে ৩ জন করে অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে। উপত্যকার পরিস্থিতি নিয়ে জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্যপাল সরকারের উদ্দেশ্য হল, কোনও গন্ডগোলেই যেন কোনও প্রাণহানি না ঘটে। শিগগিরই সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে যাবে বলে আশাবাদী প্রশাসন।

পিডিএসও/রি.মা