কাশ্মীরে রাতভর সংঘর্ষ

পাক হামলায় ৬ সেনা নিহতের দাবি উড়িয়ে দিলো ভারত

প্রকাশ : ২১ আগস্ট ২০১৯, ১০:৩৩

পার্থ মুখোপাধ্যায়

কাশ্মীরের কৃষ্ণা ঘাঁটি সেক্টরে মঙ্গলবার রাত থেকে শুরু হওয়া সেনা ও সন্ত্রাসবাদীর সংঘর্ষে নিহত হয়েছে এক সন্ত্রাসবাদী এবং প্রাণ হারিয়েছেন আরো এক পুলিশ অফিসারও। মঙ্গলবার বিকেল ৫টা থেকে শুরু হয় এই সংঘর্ষ। দু থেকে তিনজনের একটি সন্ত্রাসবাদীদল আক্রমণ শুরু করে ভারতীয় সেনাদের উপর। পালটা জবাব দেয় ভারতীয় সেনা ও পুলিশের যৌথ দল। রাতভর গুলির লড়াইয়ের পর নিহত হয় এক সন্ত্রাসবাদী। সন্ত্রাসবাদীদের ছোড়া গুলিতে শহিদ হন পুলিশের একজন অফিসার।

জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ বিলোপ হওয়ার পর, এটাই প্রথম এনকাউন্টার। সেনা সূত্রে খবর, দু-তিনজন জঙ্গি সেখানে রয়েছে। গোটা এলাকা ঘিরে জঙ্গির খোঁজে তল্লাশি চলছে। এর আগে, মঙ্গলবার জম্মু-কাশ্মীরে এক সেনা অফিসারসহ ৬ ভারতীয় জওয়ান শহিদ হয়েছে বলে যে দাবি পাকিস্তান করেছিল, তা সর্বৈব মিথ্যা বলে উড়িয়ে দিয়েছে ভারতীয় সেনা।

ভারতীয় সেনা সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে বলে পাকিস্তানের তরফে যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা-ও ‌অস্বীকার করেছে ভারত। পাকিস্তানের দাবি নস্যাত্‍‌ করে ভারতীয় সেনা এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ভারত নয়, কাশ্মীরের কৃষ্ণা ঘাঁটি সেক্টরে সংঘর্ষবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে হামলা চালিয়েছে পাকিস্তান। 

জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে কেন্দ্রকে সতর্ক করেছে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা। গোয়েন্দা সূত্রে খবর, কাশ্মীরের জনমনে ক্রোধ চরম পর্যায়ে রয়েছে। যেকোনো সময় সেই ক্রোধের চূড়ান্ত বিস্ফোরণ ঘটতে পারে ব্যাপক হিংসাত্মক কার্যকলাপে।

সম্প্রতি সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ ও ৩৫এ প্রত্যাহার করে বিশেষ সুবিধা কেড়ে নেওয়া হয়েছে। রাজ্যের মর্যাদা হারিয়ে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত হয়েছে জম্মু-কাশ্মীর। লাদাখকে কাশ্মীর থেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। কড়া নিরাপত্তাবেষ্টনীতে এখনো পর্যন্ত বিশৃঙ্খলা দেখা না-গেলেও গোয়েন্দা রিপোর্ট বলছে, কেন্দ্রের এই পদক্ষেপে ফুঁসছে জম্মু-কাশ্মীরের একাংশ। ৩৭০ বিলোপের পর কাশ্মীরিদের মধ্যে একটা উদ্বেগ কাজ করছে।

পিডিএসও/হেলাল