কাশ্মীর : আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে পাল্টা চাপে পাকিস্তান

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০১৯, ২০:৩৭

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা

রাষ্ট্রদূত বহিষ্কার এবং দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে পাকিস্তানের সিদ্ধান্তের জবাব দিয়েছে ভারত। পাকিস্তানকে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আর্জি জানিয়ে ভারতের বার্তা, বিশ্বের কাছে বিপজ্জনক ছবি তুলে ধরার জন্যই পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ছিন্ন করছে। তবে প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের চেষ্টা কখনই সফল হবে না বলে মনে করে ভারত।

সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে উল্লেখ করে বার্তা দেওয়া হয়েছে, পাকিস্তানের এই সিদ্ধান্ত একতরফা। অন্যদিকে, ইসলামাবাদ থেকে ভারতীয় রাষ্ট্রদূত অজয় বিশরিয়াকে বহিষ্কার করে আন্তর্জার্তিক ক্ষেত্রে পাল্টা চাপে পড়েছে পাকিস্তান। ভারতের বিরুদ্ধে পদক্ষেপের বদলে নিজের দেশের সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ নেয়া উচিত, পাকিস্তানকে পাল্টা জানিয়ে দিয়েছে আমেরিকা।

গত দুদিনে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়ার পর থেকেই সরব হয়েছে পাকিস্তান। সংসদেও প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানসহ অন্য মন্ত্রীরা ভারতের সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছেন। এরপর ন্যাশনাল সিকিওরিটি কাউন্সিলের বৈঠকের পর ইসলামাবাদে ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে বহিস্কার করেছে পাকিস্তানের সরকার। এ ছাড়া দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বন্ধসহ বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নিয়ে কার্যত ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্কই ছিন্ন করেছে পাকিস্তান।

এই প্রেক্ষিতে ভারতীয় বিদেশমন্ত্রক নরমে-গরমে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। পাকিস্তানের এই সিদ্ধান্ত একতরফা বলে মন্তব্যের পাশাপাশি তা পুনর্বিবেচনার আর্জিও জানিয়েছে ভারত। ভারতীয় বিদেশমন্ত্রক টুইট করে বলেছে, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে পাকিস্তানের কিছু একতরফা সিদ্ধান্তের কথা বিভিন্ন রিপোর্টে জানা গেছে। এরমধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অবনমনের কথাও বলা হয়েছে। কূটনৈতিক স্তরের সবকিছু যাতে আগের মতোই থাকে, এজন্য পাকিস্তানকে সিদ্ধান্ত পর্যালোচনা এবং পুনর্বিবেচনার আর্জিও জানানো হয়েছে ভারতের তরফ থেকে।

একইসঙ্গে ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের কড়া বার্তা এটা আশ্চর্যের নয় যে, কাশ্মীরের সামগ্রিক উন্নতিতে ভারতের যেকোনো পদক্ষেপকেই পাকিস্তান নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখে। আর সেই ভাবাবেগকে কাজে লাগিয়েই নিয়ন্ত্রণরেখায় সন্ত্রাসে মদদ দেওয়ার ঘটনাকে সাফাই দেওয়ার কাজে লাগায় পাকিস্তান। বিশ্বের কাছে ভারতের এই পদক্ষেপকে বিপজ্জনক বলে তুল ধরতে চেষ্টা করছে পাকিস্তান।পাকিস্তানের এই চেষ্টা সফল হবে না।

গতকাল বুধবার ইসলামাবাদে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার অজয় বিসারিয়াকে বহিষ্কার করে ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক কার্যত ছিন্ন করে পাকিস্তান। পাশাপাশি কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে ভারতের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপুঞ্জে সরব হওয়ার সিদ্ধান্তও নিয়েছে পাকিস্তান। পাশাপাশি মার্কিন বিদেশ দফতরও জানিয়েছিল যে, এই পদক্ষেপের কথা তাদের আদৌ জানায়নি নরেন্দ্র মোদি সরকার। ফলে আন্তর্জাতিক মঞ্চে বেশ চাপের মুখেই পড়েছিল ভারত।

কিন্তু এবার মার্কিন বিদেশ দফতরের দুই সদস্যের যৌথ বিবৃতি উল্টো পাকিস্তানকেই চাপে ফেলে দিয়েছে। বুধবার রাতে মার্কিন সেনেট ফরেন রিলেশনস কমিটির সদস্য রবার্ট মেনেন্দেজ এবং হাউস ফরেন অ্যাফেয়ারস কমিটির চেয়ারম্যান ইলিয়ট এঞ্জেল এক যৌথ বিবৃতিতে জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে , ভারতের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ করা থেকে পাকিস্তানের দূরে থাকা উচিত। এরমধ্যে যেমন নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে ভারতে প্রবেশ করতে জঙ্গিদের সাহায্য করার বিষয়টিও রয়েছে, পাশাপাশি দেশের মাটিতে সন্ত্রাসবাদী পরিকাঠামোর বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ করা উচিত পাকিস্তানের।

পিডিএসও/তাজ