লাঠি গুলি খুনে ষষ্ঠ দফার ভোট

প্রকাশ : ১৩ মে ২০১৯, ০৮:৩৬

পার্থ মুখোপাধ্যায়, কলকাতা থেকে

পশ্চিমবঙ্গে গতকাল রোববার ষষ্ঠ দফার নির্বাচনেও হিংসা এড়ানো যায়নি। দক্ষিণবঙ্গে খুন হয়েছেন তৃণমূল এবং বিজেপির দুজন কর্মী। আহত হয়েছেন অন্তত ৩৫ জন। আক্রান্ত হয়েছেন বিজেপির দুই প্রার্থী রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এবং প্রাক্তন আইপিএস ও পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ। গতকাল বারুইপুরে নির্বাচনী সভায়, কেন্দ্রীয় বাহিনী নামিয়ে বাংলায় বিজেপি গুণ্ডামি করছে বলে অভিযোগ করেছেন মমতা।

তিনি বলেছেন, সকাল থেকে অত্যাচার করছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। অনেক জায়গায় মারধর করেছে। এমনকি সাংবাদিকদের পিটিয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। সব নরেন্দ্র মোদির কথায়। ধিক্কার জানাই ওদের। বিজেপির উদ্দেশে তোপ দেগে মমতা বলেছেন, ওরা ভাবছে কেন্দ্রীয় বাহিনী এসে ভোট করিয়ে দিয়ে যাবে। মানুষের ভোটগুলো কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে দেবে। কিন্তু ওরা ভাবতে পারে না, কেন্দ্রীয় বাহিনীর বন্দুকের আঘাতে বাংলার মানুষের মাথা নত করা যায় না। এইটুকু বুদ্ধি ওদের নেই।

অন্যদিকে, অসমের অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মার বিরুদ্ধে টাকা বিলিয়ে ভোট কেনার অভিযোগ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হিমন্ত বিশ্বশর্মা সারদা কেলেঙ্কারিতে জড়িত বলেও দাবি করেছেন মমতা। মমতা বলেছেন, মথুরাপুরের প্রতিটি জায়গায় ঢুকছে, মন্দিরবাজার, বাসন্তী, গোসাবায় আসছে হিমন্ত বিশ্বশর্মা। সুদীপ্ত সেন নিজে চিঠিতে লিখে বলেছে, ওকে তিন কোটি টাকা দিয়েছে। সিবিআই তাকে গ্রেফতার করতে পারছে না। তাজবেঙ্গলে রেখে গেছে।

এদিকে, মেদিনীপুরের ঘাটালে বিজেপির প্রার্থী ভারতী ঘোষের নিরাপত্তারক্ষীর গুলি চালানোর ঘটনায় রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছেন উপমুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন। ভারতী ঘোষকে ভিডিয়োগ্রাফিতে ছাড় দেওয়ার অভিযোগে প্রিসাইডিং অফিসারকে সরিয়ে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। বিমানবন্দর থেকে আসার পথে জোড়া তল্লাশির মুখে পড়েছেন বিজেপির আরেক নেতা, একদা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘনিষ্ঠতম নেতা মুকুল রায়। গাড়ি থেকে উদ্ধার হয় বিস্কুট। সকাল থেকেই ভারতী ঘোষকে নিয়ে উত্তাল ছিল মিডিয়া। কখন তার দেহরক্ষী গুলি চালিয়েছে বলে অভিযোগ আবার কখনো ভারতীর গাড়ি ভাঙচুর। ভারতীকে কাঁদতেও দেখা গেছে। মাঝে নির্বাচন কমিশন কিছুক্ষণের জন্য তার গাড়ি বাজেয়াপ্ত করায় মন্দিরে আশ্রয় নিয়েছেন একসময় মমতা বন্দোপাধ্যায়কে ‘জঙ্গলমহালের মা’ বলে ডাকা দুঁদে পুলিশ অফিসার ভারতী ঘোষ। মমতা-ভারতীর, পুরোনো দিনের ঘনিষ্ঠ ছবি সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়েছে। কাকতালীয়ভাবে রোববারই ছিল মাদার্স ডে!

অন্যদিকে, সারা দেশে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে ৬টি রাজ্য এবং জাতীয় রাজধানী অঞ্চল দিল্লির মোট ৫৯টি আসনে গতকাল ষষ্ঠ দফায় ভোটগ্রহণ হয়েছে শান্তিপূর্ণভাবেই। এরই মধ্যে বিহারের ৮টি, হরিয়ানার ১০টি, ঝাড়খণ্ডের ৪টি, মধ্যপ্রদেশের ৮টি, উত্তর প্রদেশের ১৪টি, পশ্চিমবঙ্গের ৮টি এবং দিল্লির ৭টি আসনে ভোট হয়েছে।

বিজেপির পতাকা দিয়ে জুতো মোছার অভিযোগে সংঘর্ষ হয়েছে উত্তর প্রদেশের শাহাগঞ্জ। নিজের কেন্দ্র উত্তর প্রদেশের সুলতানপুরে একটি বুথের সামনে বিরোধী মহাজোটের প্রার্থী সনু সিংহর সঙ্গে বিবাদে জড়িয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মেনকা গান্ধী। মেনকার অভিযোগ, ভোটারদের ভয় দেখাচ্ছিলেন সনু সিংহ এবং তার অনুগামীরা। দুজন মুখোমুখি হওয়ার পর মেনকা সনুকে ডেকে বলেন, এখানে এসব দাদাগিরি চলবে না। পরে পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

গতকাল ভোট দিয়েছেন হেভিওয়েট নেতা-প্রার্থীরা। রাষ্ট্রপতি ভবনের বুথে ভোট দিলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। দিল্লিতে কে কামরাজ লেনের বুথে ভোট দিয়েছেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। নিজের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করার পর কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী বলেছেন, রাফাল, নোটবন্দি, কৃষকদের সমস্যা, জিএসটিসহ একাধিক ইস্যুতে এবার ভোট হচ্ছে। ভোট প্রচারে তার বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়ালেও তিনি প্রয়োগ করেছেন, ভালোবাসার অস্ত্র। ভালোবাসাই শেষ পর্যন্ত জিতবে বলেও রাহুল গান্ধী মন্তব্য করেছেন। দিল্লির ওল্ড রাজেন্দ্র নগরের বুথে সস্ত্রীক ভোট দিয়েছেন পূর্ব দিল্লি কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী তথা প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেট অধিনায়ক গৌতম গম্ভীর। উত্তর প্রদেশের প্রয়াগরাজে রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী তথা একসময় পশ্চিমবঙ্গের বিজেপির পর্যবেক্ষক সিদ্ধার্থনাথ সিংহ, ক্রিকেট অধিনায়ক বিরাট কোহেলিও ভোট দিয়েছেন। দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা বর্তমানে দিল্লি প্রদেশ কংগ্রেসের সভানেত্রী এবং উত্তর দিল্লি কেন্দ্রের প্রার্থী শীলা দিক্ষীত ভোট দিয়েছেন নিজামউদ্দিনের (পূর্ব) একটি বুথে। হরিয়ানার কর্নার বুথে ভোট দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টার। এ ছাড়া ভোট দিয়েছেন সোনিয়া গান্ধী, প্রিয়ঙ্কা গান্ধী, প্রকাশ কারাত, কপিল দেব, সুষমা স্বরাজ, অরবিন্দ কেজরিওয়ালসহ বিশিষ্টজনরা। দিল্লির সন্ত গঢের বুথে ভোট দিয়েছেন ১১১ বছর বয়সি বচ্চন সিংহ। সম্ভবত তিনিই দিল্লির প্রবীণতম ভোটার।

পিডিএসও/হেলাল