চট্টগ্রামে মালয়েশিয়ান হাইকমিশনারের সঙ্গে আলাপ

প্রকাশ : ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৬:৫৭

রফিক আহমদ খান, সংবাদকর্মী

দীর্ঘদিন মালয়েশিয়ায় প্রবাসজীবন কাটালেও দেশে বেড়াতে এসে কখনও কোনো মালয়েশিয়ান নাগরিকের সঙ্গে দেখা হয়নি। বাংলাদেশে বসে কোনো মালয়েশিয়ান নাগরিকের সঙ্গে মালয় ভাষায় কথা বলার ইচ্ছে ছিলো বহুদিন ধরে। 

এবার মনের সেই ইচ্ছে পূরণ হলো। মালয়েশিয়ান কোনো সাধারণ নাগরিকের সঙ্গে নয়, খোদ বাংলাদেশে নিযুক্ত মালয়েশিয়ান হাইকমিশনার নুর আশেকিন তাইব’র সাথে মালয় ভাষায় আলাপ করেছি; তা-ও আমাদের চট্টগ্রাম শহরে বসে। 

আলাপের শুরুতেই আমি মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি একটি গণমাধ্যমের প্রতিনিধি শুনে হাইকমিশনার বলেন, ‘অহ আচ্ছা! আমি তো ওই নিউজ পোর্টালটি নিয়মিত পড়ি, খুব ভালো নিউজপোর্টাল।’

তিনি চট্টগ্রামে এসেছিলেন মিরসরাই ইকোনমিক জোন পরিদর্শনে। মতবিনিময় করেছেন চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতির সঙ্গেও। ভীষণ ব্যস্ততার মাঝেও তিনি তার বন্ধু চট্টগ্রামের সন্তান যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ই-লার্নিং বিশেষজ্ঞ ড. বদরুল হুদা খান প্রবর্তিত ই-ভ্যান ‘জ্ঞানবাহন-জীবনব্যাপী গণশিক্ষা’ প্রদর্শন করতে এসেছিলেন। ড. বদরুল হুদার ফোন পেয়ে অনুষ্ঠানে ছুটে গেলাম আমিও।
  
প্রদর্শনী শেষে মালয় ভাষায় আলাপচারিতায় নুর আশেকিন বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রশংসা করেন। বাংলাদেশে দায়িত্ব পালনকালে তার ভালো লাগার কথা জানান। চট্টগ্রামের মানুষের উষ্ণ অভ্যর্থনা ও আতিথেয়তায় মুগ্ধ হয়ে তিনি এখানকার মানুষ মালয়েশিয়ার মানুষের মতোই আন্তরিক বলে জানান। তিনি ত্রিশ বছর আগে যখন আমেরিকায় পড়ালেখা করেন, তখন থেকে ড. বদরুল হুদা খানের সঙ্গে তার পরিচয় ও পারিবারিক সম্পর্কের কথা তুলে ধরে, জ্ঞানবাহনের সাথে আগামী দিনেও সম্পৃক্ত থাকার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।


 
আমার ভীষণ ভালো লেগেছে চট্টগ্রামে বসে একজন মালয়ের সঙ্গে মালয় ভাষায় গল্প করে। গর্ববোধ করলাম মালয়েশিয়ান কূটনীতিকের মুখে বাংলাদেশ তথা চট্টগ্রামের মানুষের প্রশংসা শুনে। ইচ্ছে হয়েছিল তাকে গ্রামে নিয়ে আমার গ্রাম দেখাই এবং শীতের পিঠায় আপ্যায়ন করায়। কিন্তু, সে সুযোগ কই! কুয়ালালামপুরের মত একটি পরিস্কার পরিচ্ছন্ন উন্নত শহরের নাগরিক হয়েও আমাদের এই ধুলাবালিময় জ্যামের শহরে এসে আনন্দিত তিনি। কোনো প্রকার বিরক্তি নেই তার চোখেমুখে। বরং এই শহর ও এখানকার মানুষের প্রশংসায় পঞ্চমুখ তিনি। ভিনদেশে সারাদিন ভিনদেশী ভাষায় (ইংরেজি) কথা বলা মালয়েশিয়ান এই কূটনৈতিক হঠাৎ তার মাতৃভাষায় কথা বলতে পারায় অনেকটা আনন্দিত দেখা গেছে তাকেও।

ইভ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে গত এগারো ডিসেম্বর মঙ্গলবার বিকেলে চট্টগ্রাম নগরীর শেখ মুজিব রোডের মীর বাড়ীতে এ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। প্রদর্শনীতে মালয়েশিয়ান হাই কমিশনার নূর আশেকিন তাইব বলেন, এ জ্ঞানবাহন প্রত্যন্ত অঞ্চলে মানুষের দোরগোড়ায় জ্ঞানের আলো পৌঁছে দেবে এবং বাংলাদেশের মানবসম্পদ উন্নয়নে প্রত্যক্ষ ভূমিকা রাখবে। তিনি জ্ঞানবাহন ও এর উদ্যোক্তা ড. বদরুল হুদা খানের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আরো কিছু গুণী মানুষ। তারা হলেন— ইভ ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা মীর মাহফুজুর রহমান, সাবেক জেলা লায়ন গভর্নর মোস্তাক হোসাইন, তারেক বিন হোসেন, ডা. জাহাঙ্গীর খান, শেখ মোহাম্মদ জুলফিকার, ইভ ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাহেলা আবেদীন, উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিন মহিউদ্দিন আজিম, পরিচালক মুসরাত জেবিন, সুলতানা নূরজাহান রোজী, মিরাজুল হক, মোহাম্মদ শফিকুল আলম, সাইকা তারেক প্রমুখ।

পিডিএসও/অপূর্ব