১২ ঘণ্টায় রাজধানীতে ৬ মৃত্যু

প্রকাশ : ০৬ আগস্ট ২০১৯, ১৬:৩২

অনলাইন ডেস্ক

রাজধানীতে ১২ ঘণ্টায় ডেঙ্গু রোগে ৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। তারা প্রত্যেকে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

মৃতরা হচ্ছেন, আমজাদ মণ্ডল (৫২), মনোয়ারা বেগম (৭৫), মোহাম্মদ হানিফ (৪০), ইতালি প্রবাসী হাফসা লিপি (৩৪), নকুল কুমার দাস (৪৫) ও মদিনা (৬)।

শুক্রবার ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হন মানিকগঞ্জের কৃষক আমজাদ মণ্ডল। তাকে মানিকগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে সোমবার রাতে তাকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মঙ্গলবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

একই হাসপাতালে মঙ্গলবার ভোরে মৃত্যু হয় মনোয়ারা বেগমের। ৩ আগস্ট ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয় মনোয়ারা বেগমকে। তার চার দিন আগে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন তিনি। চিকিৎসা দিলেও দ্রুত তার রক্তের প্লাটিলেট কমতে থাকে। এই অবস্থায় ঢামেক হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

তার আগে সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান নকুল কুমার দাস নামে এক ডেঙ্গু রোগী। সোমবার জ্বর নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সন্ধ্যায় হাসপাতালের ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেন্টারে (ওসিসি) তিনি মারা যান। তার বাড়ি রাজধানীর শনির আখড়ায়।

একইভাবে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারাতে হয়েছে ইতালি প্রবাসী হাফসা লিপিকে। স্বামী-সন্তান নিয়ে দেশে বেড়াতে এসেছিলেন তিনি। ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে সোমবার দিবাগত রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকার আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে মারা যান লিপি। তার গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুর।

পিডিএসও/রি.মা

সোমবার দিবাগত রাত ২টার দিকে মুগদা হাসপাতালে মারা গেছেন মোহাম্মদ হানিফ নামে এক রোগী। ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে চার দিন আগে মুগদা হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। অবস্থার অবনতি ঘটলে তার মৃত্যু হয়।

শনিবার মতলব উত্তরে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত আট বছরের শিশু মদিনা আক্তারকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থা খারাপ হলে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনরা। কিন্তু সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় শিশুটি।