ওয়েট টিস্যু ব্যবহারে ক্ষতি

প্রকাশ : ২৭ মে ২০১৯, ১৭:০৩ | আপডেট : ২৭ মে ২০১৯, ১৭:০৯

অনলাইন ডেস্ক

গরমে ঘর থেকে বের হলেই শুরু হয় শরীর ঘামানো। ঘামে ভেজা শরীরেই ছুটতে হয় গন্তব্যে। অস্বস্তি এড়াতে অনেকেই ভরসা হিসেবে বেছে নেন ওয়েট ওয়াইপস। মানে, ওয়েট টিস্যু আর কি। ধুলোবালি, ঘামের আঠালো ভাব আর আশেপাশের মানুষের গায়ের গন্ধ এড়াতে ভেজা টিস্যুর এক প্রলেপেই যেন শান্তি মেলে।

সুগন্ধি এই টিস্যু অনেকে মেকআপ তোলার পর মুখ মুছতেও ব্যবহার করেন। তারা মনে করেন, মেকআপ ব্যবহারে ত্বকের যা ক্ষতি হয় তা থেকে খানিকটা হলেও রক্ষা করে এই টিস্যু। কিন্তু হঠাৎ করেই যদি শোনেন এই ওয়েট টিস্যুই ক্ষতি করছে আপনার! না, ভুল পড়ছেন না। চিকিৎসকেরা এই ভেজা টিস্যুকেই রীতিমত ঘাতক বলে মনে করছেন। কিন্তু কেন?

শিশুর অ্যালার্জির কারণ : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ‘নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি’-র গবেষক জন কুক মিলসের গবেষণায় উঠে উঠেছে ওয়েট টিস্যুর বেশি কিছু ক্ষতিকারক দিক। তার মতে, এই টিস্যু ব্যবহারে শিশুদের ত্বকের অ্যালার্জি বেড়ে যায় কয়েকগুণ। কারণ এতে রয়েছে সোডিয়াম লরিল সালফেট নামের একটি উপাদান যা শিশু ও বয়স্কদের স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য বেশ ক্ষতিকর।

বড়দেরও ক্ষতি : ওয়েট টিস্যু ব্যবহারে ক্ষতিকর প্রভাব পড়তে পারে যে কারোরই ওপর। যার কারণ হলো ওয়েট ওয়াইপে থাকা আরেক রাসায়নিক মিথাইল ক্লোরিসেথিয়া জোলাইন। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন ঘন ঘন ওয়েট টিস্যু ব্যবহার করলে প্লাস্টিক ও রাসায়নিক ধীরে ধীরে শরীরের নানা কোষে জমতে থাকে। ফলাফলস্বরূপ হতে পারে ক্যানসার কিংবা বন্ধ্যাত্বের মতো সমস্যাও। সুতরাং এই অভ্যাসটি এখনই না বদলালে পস্তাতে হবে আপনাকে।

পরিবেশবিদরা জানাচ্ছেন ওয়েট টিস্যুর প্রধান উপাদান হলো প্লাস্টিক। অর্থাৎ ওয়েট টিস্যু কখনও নষ্ট হবে না বরং তার উপস্থিতি জলে মিশে জলজ প্রাণীদের প্রভূত ক্ষতি করবে। আর ত্বকের জন্য প্লাস্টিক যে কতটা ক্ষতিকর তা সবারই জানা।

বিকল্প ব্যবহার : চিকিৎসকদের মতে, সাধারণ রুমাল বা তোয়ালে বারবার পানিতে ভিজিয়ে মুখ মুছলে কোনো সমস্যা হয় না। এতে গরম থেকে মুক্তিও মিলবে, ত্বকও থাকবে সুরক্ষিত। মেকআপ তোলার ক্ষেত্রেও ব্যবহার করুন পেট্রোলিয়াম জেলি ও ভেজা রুমাল। সুতরাং ওয়েট টিস্যু ব্যবহারের অভ্যাস থেকে বিরত থাকুন।

পিডিএসও/তাজ