শীতে হৃদরোগীদের জন্য সতর্কতা

প্রকাশ : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৬:৪৮ | আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৭:০৮

ডা. এম শমশের আলী

বাংলাদেশে শীতের আগমন ঘটছে। শীতে কিছু অস্বস্তিকর ব্যাপারও ঘটে থাকে যেমন- চামড়ার সমস্যা, জ্বর, সর্দি, কাশি ইত্যাদি।  কিন্তু সবচাইতে মারাত্মক ব্যাপার হলো শীতের তীব্রতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে উচ্চ রক্তচাপ, হার্টের ব্যথা, হার্ট অ্যাটাক ও এর মৃত্যুঝুঁকি অনেকাংশে বেড়ে যায়।

প্রতি বছরই শীতকালে হার্ট অ্যাটাকের রোগী ৩০% থেকে ৫০% বৃদ্ধি পায়। শীতের প্রভাবে রক্তচাপের পরিমাণ ১২ থেকে ১৮ মিলিমিটার বাড়তে পারে যা গবেষণায় প্রমাণিত। শীতের প্রভাবে  রক্তনালি সংকোচিত হওয়ার ফলে রক্তচাপ বৃদ্ধি ঘটে।

শীতের প্রভাবে রক্ত উপাদানে অনেক পরির্বতন পরিলক্ষিত হয়। রক্ত জমাট বাঁধার জন্য দায়ী রক্তকনিকা, ঞরধঃবষবঃং লোহিত কণিকা, ফিব্রিনোজেন এবং কলেস্ট্রেলের মাত্রা বৃদ্ধি পায় ফলে রক্ত জমাট বাঁধার প্রবণতা বৃদ্ধি পায় শতকরা ২০ ভাগ পর্যন্ত। রক্ত জমাট বাঁধার প্রবণতা বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের প্রবণতা অনেক গুণে বৃদ্ধি পায়।

গবেষণায় দেখা গেছে যে, অত্যধিক শীতের প্রকোপে হার্টের অনিয়মিত হৃদস্পন্দন শুরু হতে পারে যার ফলে তাৎক্ষণিক মৃত্যু ঘটাও অস্বাভাবিক নয়। এ ধরনের সমস্যা থেকে মুক্ত থাকার জন্য আপনার প্রস্তুতি এবং সতর্কতা আপনাকে ঝুঁকিমুক্ত থাকতে সাহায্য করবে। মনে রাখবেন ধীরে ধীরে শীত আসার চেয়ে হঠাৎ শীত ঝেঁকে বসলে শরীর পরিবর্তিত অবস্থার সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর সুযোগ পায় না বলে এ সময় অসুস্থ হয়ে পড়ার সম্ভাবনা খুব বেশি।

সতর্কতা ও করণীয় :

♦  চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী হৃদরোগীরা নিয়মিত ওষুধ সেবন করবেন।

♦  শীতের শুরুতে আপনার চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ গ্রহণ করে ওষুধ পত্রের মাত্রা ঠিক করে নিন।

♦  ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় বাহিরে যাওয়ার সময় প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র এবং কাপড় সঙ্গে রাখুন।

♦  বাহিরে হাঁটাহাঁটি করতে যাওয়ার সময় গরম কাপড়, জুতা, ছাতা এবং প্রয়োজনীয় ওষুধ সঙ্গে নিয়ে বের হবেন।

♦  বয়স্ক হৃদরোগীরা প্রতিদিন গোসল না করে একদিন পর পর হালকা গরম পানি দিয়ে গোসল করবেন। মনে রাখবেন খুব বেশি গরম পানি দিয়ে গোসল আপনার স্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে।

♦  পুষ্টিকর খাবার গ্রহণের পরিমাণ বিশেষ করে শর্করা জাতীয় খাবার ১৫% থেকে ২০% বৃদ্ধি করা উচিত। বয়ষ্ক হৃদরোগীর শীতকালীন বৃষ্টির সময় ঘরের বাইরে না যাওয়াই উত্তম।

♦  নিয়মিত আবহাওয়ার পূর্বাভাস জেনে রাখুন যাতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করতে পারেন।

কার্ডিওলজিস্ট,  সিনিয়র কনসালট্যান্ট,  ঢাকা মেডিকেল কলেজ।

পিডিএসও/তাজ