শাহীন ও কবির আইসিইউতে

প্রকাশ : ২০ মার্চ ২০১৮, ১৯:৩৩ | আপডেট : ২০ মার্চ ২০১৮, ২০:১৪

অনলাইন ডেস্ক

নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর ত্রিভূববন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলার বিমান দুর্ঘটনায় আহত ২ যাত্রীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়েছে। শ্বাস কষ্টজনিত সমস্যার কারণে তাদের স্থানান্তর করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালের দিকে আহত শাহীন ব্যাপারিকে বার্ন ইউনিটের দ্বিতীয় তলার আইসিইউতে আর কবির হোসেনকে পুরাতন ভবনের সেন্ট্রাল আইসিইউতে নেয়া হয়েছে। 
বার্ন ইউনিটের সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন জানান, শাহীন ও কবিরের শ্বাষকষ্ট হওয়ায় তাদেরকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়েছে। তিনি বলেন, প্লেন দুর্ঘটনায় আহত হয়ে বার্ন ইউনিটে ভর্তি শাহরীন ও শহীনের অস্ত্রোপচার করা হবে। আগামীকাল বুধবার সকাল ৮টার দিকে তাদের অপারেশন শুরু হবে।
এর আগে রোববার ইউএস-বাংলার তত্ত্বাবধানে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি০৭২ ফ্লাইটে বিকেল ৩টা ২০ মিনিটে ঢাকায় নামেন শাহীন ব্যাপারি। সেখান থেকে অ্যাম্বুলেন্সযোগে তাকে ঢামেক হাসপাতালে নেওয়া হয়। বিকেল ৫টা ৮ মিনিটের দিকে তাকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স ঢামেক হাসপাতালে পৌঁছে।
শাহীন বেপারি লৌহজং উপজেলার কলমা ইউনিয়নের বান্দেগাঁও গ্রামের মৃত সাইফুল ইসলামের ছেলে। তিনি স্ত্রী-কন্যা নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে বসবাস করেন। শান্তি সংঘের সদস্য এবং সদরঘাট এলাকার বিক্রমপুর গার্ডেন সিটিতে মেসার্স করিম অ্যান্ড সন্স নামের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত শাহীন কোম্পানি থেকে বার্ষিক আনন্দ ভ্রমণে নেপাল গিয়েছিলেন।
এদিকে গতকাল সোমবার বিকেলে ইউএস-বাংলার তত্ত্বাবধানে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিজি০৭২ ফ্লাইটে ঢাকায় পৌঁছান কবির হোসেন। সেখান থেকে তাকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্সটি ঢামেক হাসপাতালে পৌঁছায় বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে। তার বাড়ি মাদারীপুর শিবচর উপজেলার বাজিদপুর গ্রামে। কবির হোসেন পেশায় কসমেটিক ব্যবসায়ী। ব্যবসায়িক কাজেই তিনি নেপাল গিয়েছিলেন বলে জানা গেছে।

পিডিএসও/মুস্তাফিজ