আমি ভাগ্যবান বলেই বেঁচে গেছি : বিধ্বস্ত বিমানের যাত্রী (ভিডিও)

প্রকাশ : ১২ মার্চ ২০১৮, ১৮:৪২ | আপডেট : ১২ মার্চ ২০১৮, ২১:২৫

অনলাইন ডেস্ক

নেপালের রাজধানী কাঠমাণ্ডুর ত্রিভূবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশের বেসরকারি বিমান সংস্থা এয়ারলাইন্স ইউএস-বাংলার একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়ে অন্তত ৫০ জন নিহত হয়েছে বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে। বিমানের বেঁচে যাওয়া যাত্রীদের একজন হলেন বসন্ত বহরা। তিনি রাস্বিত আন্তর্জাতিক ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরসের একজন কর্মকর্তা। তিনি গণমাধ্যমকে জানান, ঢাকা থেকে যখন বিমানটি ছেড়েছিল তখন কোনো সমস্যা ছিল না। কিন্তু ত্রিভুবন বিমানবন্দরে নামার আগমুহূর্তে সমস্যা দেখা দেয়। হঠাৎ করে বিমানটি ঝাঁকুনি দিতে থাকে। এতে যাত্রীরা হাউমাউ করে কাঁদতে থাকে। আমি জানালার পাশের ছিটে বসা ছিলাম। আমি জানালা ভেঙে বেরিয়ে আসি। 
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বহরা বলেন, আমি জানালা দিয়ে বেরিয়ে পড়ার পর আর কিছু বলতে পারি না। কারা যেন আমাকে সিনেমঙ্গল হাসপাতালে ভর্তি করে। আমার বন্ধুরা সেখান থেকে আমাকে নরভিক হাসপাতালে নিয়ে এসেছে। আমার মাথা ও পায়ে আঘাত লেগেছে। তবে আমি ভাগ্যবান আমি বেঁচে আছি।
খবরে প্রকাশ, বিমানটিতে বাংলাদেশের ৩২ জন, নেপালের ৩৩ জন এবং মালদ্বীপ ও চীনের ১ জন করে যাত্রী ছিলেন। হজরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সূত্র জানায়, আজ সোমবার দুপুর ১২টা ৫১ মিনিটে ঢাকা থেকে ৭১ জন আরোহী নিয়ে এটি ছেড়ে যায়। নেপালে পৌঁছানোর পর স্থানীয় সময় ২টা ২০ মিনিটে (বাংলাদেশ সময় ৩টা ৫ মিনিট) এটি বিধ্বস্ত হয়। তবে প্রাথমিকভাবে বিধ্বস্ত হওয়ার কারণ, হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতির বিস্তারিত জানা যায়নি। ৭৮ আসন বিশিষ্ট ইউএস বাংলার বিএস-২১১ বিমানটির ৭১ আরোহীল মধ্যে ৬৭ জন যাত্রী, আর ৪ জন ক্রু ছিলেন।

পিডিএসও/মুস্তাফিজ