ফরমাল পোশাকে সাজ

প্রকাশ : ১১ মার্চ ২০১৮, ১৭:২৬

অনলাইন ডেস্ক

ব্যক্তির কাছে পোশাক বিষয়টা অনেক গুরুত্ব বহন করে। যেকোনো প্রোগ্রামে কিংবা ঘুরতে গেলে সবার আগে নজর রাখতে হয় পোশাকের দিকে। কোন পোশাকটা নিজের সঙ্গে যায়, কোনটা পরলে ভালো লাগবে—এ বিষয়গুলো ফ্যাশনসচেতনদের কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ।

সবাই চায় নজরকাড়া পোশাক পরতে। এতে পরিচয় মেলে রুচিবোধ আর স্মার্টনেসের। সে ক্ষেত্রে ছেলেদের একটু বেশিই ভাবতে হয়। চুল, বেল্ট, প্যান্ট, শার্ট, শু, ঘড়ি সব মিলিয়ে ম্যাচ করে আয়নার সামনে আয়নাকে দেখানোর কাজটা সহজ। কিন্তু কঠিন কাজ হলো সবকিছু ঠিকঠাক করে অন্যের সামনে নিজেকে তুলে ধরা।

বর্তমানে ছেলেদের পোশাকের ক্ষেত্রে ফরমাল থাকার ঝোঁকটা একটু বেশিই দেখা যাচ্ছে। নিজেকে পরিপাটি, গুছিয়ে রাখার প্রবণতা, বেড়ে যাচ্ছে দিন দিন। তাই ফিটিং প্যান্টস ও শার্টস বর্তমানে ফ্যাশনের একটি বড় অংশ। প্যান্টসের ক্ষেত্রে ফিটিং প্যান্টস বা ফরমাল প্যান্ট যেমন চলছে, তেমনি তার পাশাপাশি জিন্সের চাহিদাও আছে অনেক বেশি।

বিভিন্ন স্টাইলের জিন্স এবং লুজ প্যান্টের মাধ্যমে নিজেকে সাজিয়ে নেওয়ার চেষ্টায় ছেলেরা ব্যস্ত। তার সঙ্গে বড় যে বিষয় তা হলো শার্ট। বর্তমান বাজারে শার্টের বিভিন্ন ডিজাইন মুগ্ধ করছে ক্রেতাদের। পছন্দমতো যার সঙ্গে যেটা যায় এসব কিছু মিলিয়েই শার্ট কিনছেন ফ্যাশনপ্রিয়রা।

নিজেকে মেলে ধরার সবচেয়ে বড় মাধ্যম হলো নিজের পোশাক। তাই সবকিছুর সঙ্গে মিলিয়ে সবকিছু ঠিক রেখে যে পোশাকে নিজেকে নিয়ে যাওয়া যায় ওপরের উচ্চতায়, সেই পোশাক পরার চেষ্টা করছেন সবাই। খুব বেশি কালারফুল না হলেও হাল্কার মধ্যে কীভাবে নিজেকে সুন্দর দেখানো যায়, তা নিয়েও ভাবনার অন্ত নেই এখনকার ছেলেদের।

নিউমার্কেট, চাঁদনীচক, আজিজ মার্কেটের পোশাক দোকানদারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে বাজারে তরুণদের ফ্যাশনের ক্ষেত্রে ফরমাল ড্রেসের চাহিদাটা অনেক বেশি। ফ্যাশনসচেতনরা ভাবছেন শার্ট, প্যান্ট মিলিয়ে যেন বাজারটা সাধ্যমতো করা যায়। এ ছাড়া একই পোশাকের মাধ্যমে বাইরের কাজ, অফিসের কাজ, সবকিছু যেন একসঙ্গে হয়ে যায়, এদিকেও লক্ষ্য রাখেন ক্রেতারা।

বর্তমান যুগ প্রতিযোগিতার, আর তাই নিজেকে এই প্রতিযোগিতার সঙ্গে খাপ খাইয়ে কে না এগিয়ে চলতে চায়। অন্যের সামনে নিজেকে তুলে ধরা বড় একটা গুণ। আর এই গুণ কথার আগে প্রকাশ পায় পোশাকের মাধ্যমে। তাই পোশাকে ফ্যাশনের ক্ষেত্রে সচেতন হওয়া জরুরি।

পিডিএসও/তাজ