মধ্যপ্রাচ্য থেকে প্রবাসীদের ফেরত পাঠানোর হুমকি

প্রকাশ : ০৪ মে ২০২০, ০৯:২৪

কূটনৈতিক প্রতিবেদক

বিশ্বজুড়ে কোভিড-১৯ মহামারির প্রভাবে পরিস্থিতিতে অচলাবস্থার কারণে বহুমাত্রিক সংকট দেখা দিয়েছে বাংলাদেশের জনশক্তি রফতানি খাতে। প্রবাসে বিভিন্ন দেশে কর্মরত বাংলাদেশিরা একদিকে বেতন পাচ্ছেন না আবার অনেকে ছাটাই এবং মজুরি হ্রাসের কবলে পড়েছেন। যে ১ কোটিরও বেশি বাংলাদেশি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মরত রয়েছেন, তার বড় অংশই রয়েছেন মধ্যপ্রাচ্যে।

কিন্তু অর্থনৈতিক মন্দার কারণে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশিদের ফেরত পাঠানোর হুমকি দিচ্ছে। এরমধ্যে শুধু সৌদি আরবই ১০ লাখের বেশি বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠাবে। এপ্রিলে বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট বাংলাদেশ মিশন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

করোনাভাইরাস মহামারিতে বিশ্বজুড়ে লকডাউন এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে গত মার্চ মাসে প্রবাসীরা ১২৮ কোটি ৬৮ লাখ ডলার দেশে পাঠিয়েছে যা চলতি অর্থবছরই শুধু নয় বিগত ১৫ মাসের মধ্যেও সর্বনিম্ন। চলতি বছরের ৯ মাসে গড় রেমিটেন্স ছিল মাসে ১৫৩ কোটি ডলার। ফলে প্রবাসীদের টাকা পাঠানোর পরিমাণ আরো কমতে পারে বলেও আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যের শ্রমবাজারের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয়। বিশেষ করে সৌদি থেকে কত শ্রমিক ফেরত আসবে তা ভাবতেও পারছি না। সৌদি সরকার বাংলাদেশিদের ফেরত আনার বিষয়ে তাগাদা দিচ্ছে। কিন্তু আমরা তাদের বলেছি, একসঙ্গে এত লোক আনতে পারব না। আমরা আমাদের নাগরিক অবশ্যই নিয়ে আসব। তবে ধাপে ধাপে আনতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘৭০ শতাংশ নাগরিককে কর্মক্ষেত্রে আনার পরিকল্পনা সৌদি সরকারের অনেক দিনের। এটা তারা প্রতিবছর ৫ শতাংশ করে এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে। কিন্তু সৌদির মানুষ তো কাজ করে না, তাদের পাওয়াও যায় না। যদিও বর্তমানে সৌদির কিছু লোক কাজে যোগ দিচ্ছেন। তবে তেলের দাম পড়ে যাওয়ায় সৌদির অর্থনীতি কিছুটা কঠিন অবস্থায় রয়েছে। ফলে মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশগুলোতে আগামীতে আমাদের শ্রমিকের চাহিদা কমবে।’

পৃথিবীর ১৬৯টি দেশে বাংলাদেশের ১ কোটিরও বেশি মানুষ কাজ করেন। এর মধ্যে প্রায় ৭৫ শতাংশেরই কর্মসংস্থান মধ্যপ্রাচ্যে। বিদেশে অবস্থানরত প্রবাসীদের অনেকেই এখন বাড়িতে টাকা পাঠাতে পারছেন না। চাকরি নিয়েও আছে দুশ্চিন্তা।

মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে কর্মরত তোফাজ্জল হোসেন জানান, তিন মাস ধরে তিনি দেশে টাকা পাঠাতে পারছেন না। গত মাসে বেতন-ভাতাও পাননি। তিনি যে কারখানায় কাজ করেন সেটিও বন্ধ। বাড়ি থেকে যোগাযোগ করছে যে টাকা-পয়সা দরকার।তিনি বলেন, কোনোটাই তো হচ্ছে না। এখানে আমরা আছি অনেক করুণ অবস্থায়। আর আমরা প্রাইভেট সেক্টরে কাজ করি ভাই। কোনো নিশ্চয়তা নেই।

মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরবে কাজ করেন সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশি। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সৌদি আরবে যে কড়াকড়ি চলছে তাতে নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত সবাই। এছাড়া মহামারির প্রভাবে দেশটির তেলনির্ভর অর্থনীতিও মন্দার কবলে। এ অবস্থায় সৌদিতে বহু প্রতিষ্ঠানে বেতন কাটা হচ্ছে এবং শ্রমিক ছাঁটাই শুরু হয়েছে বলে জানান সৌদি আরব প্রবাসী এসএম শামীম।

তিনি বলেন, আমার নিজের কোম্পানি প্রচুর সংখ্যক শ্রমিক ছাঁটাই করতেছে। ছাঁটাই একটা বিরাট সমস্যা হয়ে গেছে। আরেকটা সমস্যা হচ্ছে বেতন কাটছে। তিনি জানান, যাদের বেতন ২-৪ হাজার ছিল তাদের বেতন ২ হাজারে নিয়ে আসতেছে। ৪ হাজারের ওপরে যাদের বেতন তাদের বেতন ৫০ ভাগ কাটতেছে।

বরিশালের আমেনা বেগম জানান তার স্বামী সৌদি আরবে থাকেন বড় ছেলে মালয়েশিয়ায়। দুই মাসের বেশি টাকা আসেনি, সামনে সংসার চালানো নিয়েই তার এখন অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। যা ছিল হাতে দুই-তিন মাস আগে পাঠানো টাকা তা শেষের দিকে। আমরা তো একবারেই বাজার করি। এখন বাজার শেষপ্রান্তে।

তিনি জানান, আমি আর ১০-১২ দিন সর্বোচ্চ ১৫দিন চলতে পারব। আর কবে তাদের লকডাউন ছাড়বে এটাও বলতে পারছেন না। বিদেশ যাওয়া বন্ধ, আয় কমে যাওয়ার পাশাপাশি দেশে এসে কর্মস্থলে ফেরা নিয়েও অনিশ্চয়তায় প্রায় ২ লাখ প্রবাসী।

পিডিএসও/তাজ