ঘূর্ণিঝড় বুলবুল : বেড়েছে বিপদ সংকেত

প্রকাশ : ০৭ নভেম্বর ২০১৯, ২১:৩৬

অনলাইন ডেস্ক
ঝড়ো হাওয়ার শঙ্কায় সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে ঝড়ো হাওয়ার শঙ্কায় সমুদ্রবন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৮২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৭০ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৪০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল।

জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ আবদুল মান্নান জানান, শুক্রবার সকাল ৯টা নাগাদ ঘূর্ণিঝড়টি আরো ঘনীভূত হবে। রোববার নাগাদ উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় থাকবে। সন্ধ্যায় ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছিল। এর প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকায় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

শুক্রবার সতর্কতা সংকেত ৪ নম্বর করা হতে পারে। এদিন বিকেলে ঘূর্ণিঝড়টির প্রভাবে জলীয় বাষ্প বাড়ায় উপকূলীয় এলাকায় হালকা বৃষ্টি হতে পারে। বাংলাদেশে এর প্রভাব পড়বে কি না এ প্রসঙ্গে আবহাওয়াবিদ মান্নান বলেন, এখনো বড় ধরনের শঙ্কা দেখছি না আমরা। উত্তর বঙ্গোপসাগরে আসার পর ঘূর্ণিঝড় বুলবুল কোন দিকে মোড় নেয়, তার উপর নির্ভর করবে। শনিবার রাতে পরিস্থিতি দেখে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিলে সতর্কতা সংকেত বাড়ানো হবে।

আবহাওয়াবিদ মান্নান আরো জানান, উত্তর বঙ্গোপসাগরে আসার পর বুলবুল প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নাও নিতে পারে। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ উপকূলে আসার শঙ্কাও থাকবে না। এখনো অনেক দূরে থাকায় ঘূর্ণিঝড়ের অবস্থান পর্যালোচনা করে বুলেটিন দেওয়া হচ্ছে।

পিডিএসও/হেলাল