আবেগাপ্লুত মম!

প্রকাশ : ০৯ জুলাই ২০২০, ০৯:২৭

বিনোদন প্রতিবেদক
অভিনেত্রী ও মডেল জাকিয়া বারী মম

এক যুগেরও বেশি সময় ধরে অভিনয় করছেন জাকিয়া বারী মম। অভিনয় জীবনের শুরু থেকেই মমকে ভালো ভালো গল্পের নাটক-টেলিফিল্মে অভিনয়ের জন্য তার মা ফোন দিয়ে অনুপ্রাণিত করতেন, অভিনয়ের প্রশংসা করতেন। কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরে মায়ের কাছ থেকে পেশাগত কাজের ব্যাপারে অনুপ্রেরণা দেওয়া কিংবা কোনো ভালো চরিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রশংসা আসা যেন অনেকটাই কমে যায়। কিন্তু গেল ৩ জুলাই এনটিভিতে চয়নিকা চৌধুরীর ৪০০তম নাটক ‘গল্প নয়’ প্রচারের পর সেই নাটকটি মমর মা দেখেন। সঙ্গে তার বাবাও নাটকটি উপভোগ করেন। নাটকটির গল্প এবং এতে মমর অভিনয়ে ভীষণ আবেগী হয়ে উঠেছিলেন মমর মা।

মমর মা আয়েশা আকতার একজন অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক। মায়ের কাছ থেকে ‘গল্প নয়’ নাটকে অভিনয়ের জন্য প্রশংসা শুনে মম প্রায় কেঁদেই ফেলেছিলেন।

মম বলেন, ‘সত্যি বলতে কী আগে আম্মু আমার প্রায় প্রতিটি কাজই দেখার চেষ্টা করতেন। আব্বুও ঠিক তাই। কিন্তু এখন গল্পে ভিন্নতা না থাকায় আম্মু নাটক দেখার প্রতি তেমন আগ্রহ পান না। যে কারণে আম্মু ফোন করলেও জীবনের গল্প নিয়ে কথা হলেও নাটক বা অভিনয়-সংক্রান্ত তেমন কোনো কথাই হয় না। কিন্তু গল্প নয় নাটকটি প্রচারের পর আম্মু আমাকে ফোন করে অনেক ইমোশনাল হয়ে পড়েছিলেন। অনেক দিন পর আমার অভিনীত নাটক তাকে ভীষণ আবেগী করে তুলেছিলেন। আব্বুও নাটকটি প্রসঙ্গে আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। আম্মু আর আব্বুর কাছ থেকে দীর্ঘদিন পর কোনো নাটকের ব্যাপারে এতটা ভালো লাগার কথা শুনে আমার ভীষণ ভালো লেগে ছিল। ধন্যবাদ চয়নিকা দিদিকে আমাকে এমন সময়ে এমন অসাধারণ একটি চরিত্রে কাজ করার সুযোগ দেওয়ার জন্য। নাটকটি প্রচারের পর থেকে দর্শকের কাছ থেকেও অনেক সাড়া পাচ্ছি। করোনার মধ্যে অনেক রিস্ক নিয়ে, অনেক কষ্ট করে কাজটি করলেও দর্শকের ভালোবাসায় অনুপ্রাণিত হচ্ছি আরো ভালো গল্পের নাটকে কাজ করার।’

এদিকে মম এরই মধ্যে শেষ করেছেন আনিসুর রহমান মিলনের নির্দেশনায় এজাজ মুন্নার রচনায় ‘মুনিরা মঞ্জিল’ নাটকের কাজ। এতে মমর দাদা-দাদির চরিত্রে অভিনয় করেছেন লুৎফর রহমান জর্জ, মুনিরা মিঠু। কোরবানির ঈদে আরো নাটকে কাজ করবেন কি না?—এমন প্রশ্নে মম বলেন, ‘বেশ কিছু নাটকের স্ক্রিপ্ট এসেছে আমার কাছে। কিন্তু আমি আসলে এ রিস্কের মধ্যে খুব পরিচিত ইউনিট এবং নিজেদের মানুষ ছাড়া আপাতত আর কারো নাটকে কাজ করার ইচ্ছে রাখছি না। কারণ করোনা পরিস্থিতি এখনো ভয়াবহ। এই পরিস্থিতির মধ্যে যে দুটি কাজ করেছি, সে দুটিই করেছি মনের মধ্যে অনেক শঙ্কা নিয়ে। দেখা যাক সামনে কী হয়।’

পিডিএসও/হেলাল