শিল্পী সমিতির নির্বাচন আজ

কী ভাবছেন শীর্ষ ৪ প্রার্থী

প্রকাশ : ২৫ অক্টোবর ২০১৯, ০৯:৫০ | আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০১৯, ১০:০৩

তুহিন খান নিহাল

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচন আজ। নির্বাচন ঘিরে বেশ কয়েক দিন ধরে সরগরম বিএফডিসি। ভেতরে-বাইরে চলছে তর্ক-বিতর্ক। তবে সবাই আশাবাদী, সুষ্ঠু-সুন্দর ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের মধ্যদিয়ে ওঠে আসবে নতুন নেতৃত্ব। নির্বাচন নিয়ে কী ভাবছেন শীর্ষ চার প্রার্থী। তাদের মতামত তুলে ধরেছে প্রতিদিনের সংবাদ।

মৌসুমী

আমি সুষ্ঠু সুন্দর নিরপেক্ষ নির্বাচনের প্রত্যাশা করছি। শিল্পীদের, ভোটারদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা কামনা করছি। প্রশাসনের সহযোগিতা চাইছি, যাতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটাররা ভোট প্রদান করতে পারেন। নির্বাচন কমিশনের সহযোগিতা চাইছি। শিল্পীদের প্রতি, ভোটারদের প্রতি, বিশেষত বলছি আপনাদের দোয়া ও ভালোবাসা আমার খুব প্রয়োজন। আপনারা আপনাদের দোয়া ও ভালোবাসা থেকে আমাকে বঞ্চিত করবেন না।

আমার অনুরোধ, ভোটের মাধ্যমে আমাকে সমর্থন দিন, আপনাদের সেবা করার সুযোগ দিন। আমি শিল্পীদের তাদের আত্মসম্মানের জায়গায় দেখতে চাই, শিল্পীদের আত্মমর্যাদা রক্ষার জন্যই আমি কাজ করে যাব ইনশাআল্লাহ।

মিশা সওদাগর

শিল্পী সমিতিতে শিল্পীরা বিগত দিনে আমাকে যে পরিমাণ সম্মান দিয়েছেন, তাতে শিল্পী সমিতির প্রত্যেক সদস্যের কাছে আমি ঋণী। এ ঋণ আমি শোধ করতে পারব না। তবে সবার কাছে আরেকবার সুযোগ চাই তাদের সেবায় কাজ করতে চাই। আমি ভোটারদের কাছে দোয়া চাই। আমার পুরো প্যানেলের পাশে থাকার জন্য ভোটারদের কাছে অনুরোধ করে ভোট চাইছি। তবে আমি মনে করি, নির্বাচন একটি খেলা। খেলায় একদল পরাজিত হবেই।

জায়েদ খান

আমাদের বর্তমান কমিটি জয়ী হওয়ার পর কী করেছে, সেটা সব শিল্পীই জানেন। তাদের সমর্থন নিয়ে তাই আবারও আমাদের প্যানেল নির্বাচন করছে। এবার জয়ী হলে কাজের গতি আরো বাড়বে। শিল্পীদের পাশে আগেও ছিলাম, এবারও থাকতে চাই। গত বছর আমাদের নির্বাচনী স্লোগান ছিল ‘নীতিগতভাবে আমরা এক’। এবার স্লোগান ‘আপনাদের ভালোবাসাই আমাদের শক্তি’। আমি মনে করি, আমাদের ভোটাররা অনেক সচেতন। আমি ভোটারদের অনুরোধ করব, আমার পুরো প্যানেলকে ভোট দিন। আমরা ২১ জন আপনাদের জন্য কাজ করতে চাই।

ইলিয়াস কোবরা

নির্বাচন সুষ্ঠু হোক—এটাই প্রত্যাশা। আর সম্মানিত ভোটারদের উদ্দেশে বলব, শেষবারের মতো একবার সুযোগ চাই আপনাদের কাছে। সাধারণ সম্পাদক পদে পাস করলে ইনশাআল্লাহ আপনাদের পাশে থাকব। দক্ষতা, সিনিয়র-জুনিয়র, সাংগঠনিক অভিজ্ঞতা—এসব দেখেই ভোটাররা ভোট দেবেন বলে আমার বিশ্বাস। যদি নির্বাচিত হই, যারা ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন, যাচাই-বাছাই করে তাদের সে অধিকার ফিরিয়ে দেওয়াই হবে আমার প্রথম কাজ। আমি মনে করি, ভোটাররা ভোট দেওয়ার ক্ষেত্রে যোগ্য প্রার্থীকেই বেছে নেবেন।

পিডিএসও/হেলাল