সালমান শাহের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী

অভিনয় জগতের এক ধূমকেতু

প্রকাশ : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:৩১

অনলাইন ডেস্ক

বাংলা চলচ্চিত্রের অমর নায়ক সালমান শাহ। আজ (৬ সেপ্টেম্বর) তার ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী। প্রিয় নায়কের স্মরণে দেশজুড়ে সালমানের পরিবার ও ভক্তরা নানা আয়োজন হাতে নিয়েছেন। দোয়া, মিলাদ ও মানববন্ধন কর্মসূচি এসবের অন্তর্ভুক্ত। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর রহস্যজনকভাবে নিহত হন সালমান শাহ। অভিযোগ উঠে, তাকে হত্যা করা হয়েছে। সেই মামলার সুরাহা আজ পর্যন্ত হয়নি।

সালমান শাহকে বলা হতো ঢাকাই ছবির সাফল্যের বরপুত্র। ছিলেন অপ্রতিদ্বন্দ্বী নায়ক। তার জনপ্রিয়তার রেকর্ড আজ পর্যন্ত কেউ ভাঙতে পারেননি। রহমান, নাদিম, রাজ্জাক, সোহেল রানা, ফারুক, উজ্জ্বল, জাফর ইকবাল, ইলিয়াস কাঞ্চন প্রমুখ জনপ্রিয় নায়কের যুগের পর ঢালিউডের আকাশে ধূমকেতুর মতো আবির্ভাব ঘটে সালমান শাহের।

মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি ছিলেন আন প্যারালাল, মৃত্যুর পরেও হয়ে আছেন অপ্রতিদ্বন্দ্বী নায়ক। সালমানের অভিনয় স্টাইল, পর্দায় তার সপ্রতিভ উপস্থিতি আর নায়কোচিত ইমেজ আজও অন্য তারকাদের কাছে অনুকরণীয় হয়ে আছে। ১৯৯৩ সালে সোহানুর রহমান সোহানের পরিচালনায় ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে রুপালি পর্দায় তার অভিষেক। শুরুতেই বিশাল সাফল্য দিয়ে সালমান প্রাণসঞ্চার করে দিলেন মৃতপ্রায় চলচ্চিত্রে। তারপর শুধুই ইতিহাস।

সালমান শাহ মানে দর্শকের ভালোবাসা আর চলচ্চিত্রের জন্য আশীর্বাদ। ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৬। শুধুই সাফল্যের পথে হেঁটে যাওয়া। চলচ্চিত্রের আকাশে ধূমকেতুর মতো এখনো জ্বলজ্বল করে জ্বলছেন চির অমর সালমান শাহ। মৃত্যুর মাত্র কদিন আগে মৃত্যু নিয়ে সালমান শাহ বলেছিলেন, ‘এখনই এ ধরনের পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত নই, কাম্যও নয়। শুধু আমার নয়, কারও ভাগ্যে যেন বিধাতা অকাল মৃত্যু না লিখেন।’ বেঁচে থাকার জন্য যার আকুতি ছিল এমন, তিনি কী করে আত্ম অভিমানে নিজেকে সংহার করবেন। এমন প্রশ্নের উত্তর আজও মেলেনি। সালমান ছিলেন অভিনয়ে, আছেন হৃদয়ে, থাকবেন অনন্তকাল। সবাই জানেন, সালমানের মৃত্যু নেই। আজ তার প্রস্থানের ২২তম বার্ষিকী। শ্রদ্ধাভরে আমরা স্মরণ করছি চিরকালের এই মহানায়ককে।

সালমান শাহ অভিনীত ছবি : কেয়ামত থেকে কেয়ামত, তুমি আমার, অন্তরে অন্তরে, সুজন সখী, বিক্ষোভ, স্নেহ, প্রেমযুদ্ধ, কন্যাদান, দেনমোহর, স্বপ্নের ঠিকানা, আঞ্জুমান, মহামিলন, আশা ভালোবাসা, বিচার হবে, এই ঘর এই সংসার, প্রিয়জন, তোমাকে চাই, স্বপ্নের পৃথিবী, সত্যের মৃত্যু নেই, জীবন সংসার, মায়ের অধিকার, চাওয়া থেকে পাওয়া, প্রেম পিয়াসী, স্বপ্নের নায়ক, শুধু তুমি, আনন্দ অশ্রু, বুকের ভেতর আগুন [মোট ছবি ২৭টি]।

বিজ্ঞাপনচিত্র : মিল্ক ভিটা, জাগুরার, কেডস, গোল্ড স্টার টি, কোকাকোলা, ফানটা। ধারাবাহিক নাটক : পাথর সময়, ইতিকথা। একক নাটক : আকাশছোঁয়া, দোয়েল, সব পাখি ঘরে ফেরে, সৈকতে সারস, নয়ন, স্বপ্নের পৃথিবী।

পিডিএসও/হেলাল