‘এতটাই নার্ভাস ছিলাম, রীতিমতো হাত-পা কাঁপছিলো’

প্রকাশ : ২৭ আগস্ট ২০১৮, ১৮:৫৪ | আপডেট : ২৭ আগস্ট ২০১৮, ২০:০২

রিহাব মাহমুদ

সুবর্ণ সুযোগই বলতে হয় কাজল সুবর্ণ’র বেলায়। কারণ বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে মিডিয়াঙ্গনে পা রাখলেও অভিনেত্রী হিসেবে দিনদিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছেন তিনি। এই ঈদেও প্রচুর নাটকে অভিনয় করে দর্শকনন্দিত হয়েছেন। বৈশাখী টেলিভিশনের ঈদের অনুষ্ঠানমালায় কাজল সূবর্ণ অভিনীত ‘কিপ্টা দুলাভাই’ নামের ৭ পর্বের ধারাবাহিক নাটকটি ইতোমধ্যে দর্শক গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। নাটকটি ঈদের দিন থেকে সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে প্রচারিত হচ্ছে। রোমান রুনির পরিচালনায় নাটকে ইরফানের বিপরীতে অভিনয় করেছেন তিনি। নাটকটিতে দুলাভাই চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান। সোমবার সন্ধ্যায় প্রতিদিনের সংবাদের সঙ্গে নাটকটি নিয়ে কথা বলেন কাজল সুবর্ণ। 

‘কিপ্টা দুলাভাই’ নাটকটা আমার খুব পছন্দের নাটক। নাটক নিয়ে যখন ডিরেক্টর রোমান রুনি আমার সাথে কথা বলেছিলেন। সেসময় আমাকে স্ক্রিপ্ট পাঠানো হয় ই-মেইলে। তখন আমাকে যে ক্যারেক্টার উনি দিয়েছিলেন, তার জন্য আমি প্রিপারেশন নিতে শুরু করি। চরিত্রের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে সব ধরণের প্রস্তুতি নিলাম এবং আলাদা কস্টিউম রেডি করে শুটিং করতে গেলাম কক্সবাজার। শুটিং শুরুর আগে যখন মেকাপ নেয়া শেষ, তখন ডিরেক্টর সাহেব হঠাৎ জানালেন আমি ওই ক্যারেক্টার করছি না, করছি অন্য ক্যারেক্টার। অতর্কিত এমন সিদ্ধান্তে আমি প্রথমে বিস্মিত। কেননা, এই নাটকে দুটো মেয়ের ক্যারেক্টার ছিলো। অন্য মেয়ের ক্যারেক্টার করার মতো কোনো প্রিপারেশন আমার ছিলো না। আর কস্টিউমেরও একটা ব্যাপার ছিলো। কপাল ভালো যে আমার ব্যাগে এক্সট্টা কস্টিউম ছিলো। তারপর ওই ক্যারেক্টার করি আমি।

তারপর কাজটা করার সময় আমার কোআটিস্ট ইরফান ভাই আমাকে যথেষ্ট সহযোগিতা করেছেন। এছাড়া রোমান রুনি ভাইও খুবই সহযোগিতা করেছেন। হয়তো ওনারা দু’জনে আমাকে হেল্প না করলে আমি কাজটা ভালোভাবে করতে পারতাম না। টেনশান কাজ করছিলো, হঠাৎ করে ওই ক্যারেক্টার করতে পারবো কি পারবো না। কারণ, আমি তো ওই ক্যারেক্টারের জন্য কোনো প্রিপারেশন নিয়ে যাইনি। 

জাহিদ হাসান ও ইরফান খানের  সঙ্গে

কাজল বলেন, তারপর সবার সহযোগিতায় আমি সুন্দরকরে কাজটা শেষ করতে পেরেছি। আশা করি দর্শকের ভালো লাগবে নাটকটা। বিশেষ করে ঈদের সময় কমেডি নাটক হয় স্পেশাল। 

ধারাবাহিকটিতে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন জাহিদ হাসান। জাহিদ হাসান সম্পর্কে কাজল সুবর্ণ বলেন, জাহিদ হাসান ভাইয়ের সাথে এটা প্রথম কাজ। ছোটবেলা থেকেই ওনি আমার পছন্দের অভিনেতা। ওনার সাথে স্ক্রিণ শেয়ার করবো বা ওনার সাথে অভিনয় করবো এটা কখনো ভাবিনি। তারপর যখন কাজটা করতে গেলাম, জাহিদ ভাই অসম্ভব সহযোগিতা করেছেন। আমি এতটাই নার্ভাস ছিলাম, রীতিমতো হাত-পা কাঁপছিলো। এতবড়ো মাপের অভিনেতার সাথে আমি কাজ করছি। অনেক সময় গলা শুকিয়ে যাচ্ছিলো, তারপরও সুন্দরভাবে কাজটা করেছি। 

কিপ্টা দুলাভাই ছাড়াও, ওস্তাদের মাইর মাঝ রাতে, আহা! প্রেম এর মতো উল্লেখযোগ্য ঈদের নাটকে অভিনয় করেছেন কাজল সুবর্ণ। একজন ভালো ও দক্ষ অভিনেত্রী হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে চান কাজল। 

পিডিএসও/রি