বন্যার্তদের পাশে কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশ : ২৩ জুলাই ২০১৯, ০৯:০৭ | আপডেট : ২৩ জুলাই ২০১৯, ১২:২০

জাককানইবি প্রতিনিধি

দেশের বন্যা পরিস্থিতি দিন দিন আরো অবনতি হচ্ছে। প্রবল বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢালে প্রতিদিন নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। যাতে করে বিশুদ্ধ পানি, খাবার সংকট দেখা দিয়েছে বন্যাকবলিত এলাকাগুলোতে। ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছে লক্ষাধিক মানুষ।

বন্যাকবলিত মানুষের জন্য দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ইতোমধ্যে ত্রাণ পৌঁছাতে শুরু করেছে। দুর্ভোগের এ চিত্র নাড়া দিয়েছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ নানা সংগঠন।

বিশ্ববিদ্যালয়ে বন্যাদুর্গতের সহযোগিতা করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে ‘বানভাসি’ নামে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। ভিন্নমাত্রার এ পারফরম্যান্স আর্ট অনুষ্ঠানের নির্দেশক নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষক মেহেদি তানজির জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের সক্রিয় সংগঠনগুলিকে সংযুক্ত করে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের আগ্রহী শিক্ষকদের সক্রিয় অংশগ্রহণে বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়াবার জন্য এই প্রয়াস। বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ পুকুরকে বন্যার্ত অঞ্চলের একটুকরো হিসেবে উপস্থাপন করে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের আরো ৩টি স্থানকে সংযুক্ত করে চলবে এই পারফরম্যান্স। গান, নাচ, যন্ত্রবাদন, কবিতার পাশাপাশি থাকছে চিত্রাঙ্কন। আছে নিজেদের তৈরি খাবার বিক্রির ব্যবস্থা এবং দলগত পারফরম্যান্সের মাধ্যমে বন্যার্তদের জন্য সাহায্য উত্তোলন। আর বন্যার্ত মানুষের কষ্ট উপলব্ধির জন্য দুদিন তাদের মতো বসবাসের চেষ্টা।

‘বন্যার্তদের পাশে কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়’ স্লোগানকে সামনে রেখে সোমবার ২২ জুলাই আইন ও বিচার বিভাগের উদ্যোগে জামালপুরের ইসলামপুরে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সময় বন্যার্তদের মাঝে চার শতাধিক পরিবারকে শুকনো চিড়া, গুড়, কলা, স্যালাইন, বিস্কুট, মোমবাতি, মেস, পানি বিশুদ্ধকরণের জন্য ফিটকিরি ও পানিবাহিত রোগের ওষুধসহ নগদ প্রদান করা হয়।

জামালপুরে বন্যাকবলিত বৃদ্ধা রহিমা বেগম বলেন, আমাগো ঘরে বন্যার জল উঠছে। আমাগো সাহায্য করার জন্য আপনেরা আইছেন আমরা খুব খুশি হইছি। আল্লাহ আপনাগো ভালা করুক।

বন্যার্তদের সাহায্য করার জন্য জাককানইবি উদীচী শিল্পী সংসদ ২৪ ও ২৫ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ের কনফারেন্স হলে আয়োজন করেছে ডকুমেন্টারি ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ থেকে বন্যার্তদের সাহায্য করার জন্য ময়মনসিংহ, ত্রিশাল, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থান থেকে এই ত্রাণসামগ্রীর টাকা সংগ্রহের কাজ করছে স্বেচ্ছাসেবীরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে বন্যাদুর্গত এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়াতে সাহায্যের বক্স হাতে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়সহ নগরীর বিভিন্ন এলাকায় দিনরাত অর্থ সংগ্রহের কাজ করছেন শিক্ষার্থীরা। এ কাজে এগিয়ে এসেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, জেলা ছাত্র কল্যাণ সংগঠনসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

পিডিএসও/হেলাল