ভিকারুননিসার ক্লাস-পরীক্ষা অনির্দিষ্টকাল বন্ধ

অধ্যক্ষসহ ৩ শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

প্রকাশ : ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৩:০০ | আপডেট : ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৪:১৪

অনলাইন ডেস্ক

পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সব ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। স্কুলের গভর্নিং বডির শিক্ষক প্রতিনিধিদের একজন মুশতারী সুলতানা অধ্যক্ষের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা জানান।

মুশতারী বলেন, অরিত্রীর সহপাঠীরা যারা আন্দোলন করছে, তাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে ক্লাস ও পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। আমরা অরিত্রীর ঘটনায় গভীরভাবে শোকাহত। ছাত্রীরাও গভীরভাবে শোকাহত। তাদের বান্ধবী মারা গেছে, পড়াশোনা করতে পারছে না। এ কারণে পরীক্ষা বাতিল করেছি। অধ্যক্ষ কোথায় জানতে চাইলে বলেন, তিনি অসুস্থ। আমরা গভর্নিং বডির সদস্যরা মিলে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

শিক্ষকদের বিরুদ্ধে কোচিং ও বাজে ব্যবহারের অভিযোগ বিষয়ে জানতে চাইলে মুশতারী সাংবাদিকদের বলেন, এখানে ৭০০ জনের মতো শিক্ষক আছে। ২ থেকে ৫ শতাংশ শিক্ষক কোচিং করায়। সবাই একরকম নয়। কারও বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ থাকলে আমরা শিক্ষার্থী অভিভাবকদের লিখিতভাবে দিতে বলেছি।

শিক্ষার্থীদের গভর্নিং বডির পদত্যাগের দাবি বিষয়ে মুশতারী বলেন, এটি তো শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বিষয়। তারা পরিবর্তন করে দিলে আমাদের কিছু করার নেই। মুশতারী সুলতানা প্রেস ব্রিফিং করার আগে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিন ফটকের বাইরে অবস্থান নেওয়া শিক্ষার্থীদের গিয়ে ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ করার বিষয়টি জানিয়ে আসেন।

এদিকে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় প্ররোচনাকারী হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, শাখা প্রধান এবং এক শ্রেণিশিক্ষককে চিহ্নিত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের করা তদন্ত কমিটি। এজন্য ওই তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলেছে কমিটি।

আজ বুধবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ওই তিন শিক্ষককে বরখাস্ত করতে পরিচালনা কমিটিকে নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রণালয়ের কমিটি। এই তিন শিক্ষকের এমপিও স্থগিত করা হয়েছে। এই তিন শিক্ষক হলেন—ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, শাখা প্রধান জিনাত আক্তার ও শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনা।

পিডিএসও/হেলাল