ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটে উত্তীর্ণদের আবার পরীক্ষা নেওয়া হবে

প্রকাশ : ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ১৫:৫৭ | আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ২১:০০

ঢাবি প্রতিনিধি

প্রশ্নফাঁসের জেরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত 'ঘ' ইউনিটে নতুন করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডিন কমিটি। তবে এক্ষেত্রে ভর্তি পরীক্ষায় পাশ করা সাড়ে ১৮ হাজার শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটির সভায় মঙ্গলবার বিষয়টি নিয়ে প্রায় ২ ঘণ্টা আলোচনার পর এই সিদ্ধান্ত হয় বলে উপার্চায অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, গত ১২ অক্টোবর নেওয়া ভর্তি পরীক্ষায় যে ১৮ হাজার ৪৬৪ জনকে উত্তীর্ণ ঘোষণা করা হয়েছিল, কেবল তাদের নিয়েই নতুন করে এই পরীক্ষা হবে। পরীক্ষার দিনক্ষণ পরে জানিয়ে দেওয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থ অ্যান্ড ইনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. এ এসএম মাকসুদ কামাল জানান, 'ঘ’ ইউনিট পরীক্ষার সমন্বয়ক অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম পরীক্ষা কমিটির অন্য সদস্যদের সঙ্গে বসে পরীক্ষা গ্রহণের প্রস্তুতি ও দিনক্ষণ বিষয়ে কাল বুধবার সিদ্ধান্ত নেবেন।

উল্লেখ্য, গত ১২ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০টায় ভর্তি পরীক্ষা শুরুর আগে ৯টা ১৭ মিনিটে ওই পরীক্ষার উত্তরসহ প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়। পরে প্রশ্নপত্র যাচাই করে দেখা হয় পরীক্ষার আগে ফাঁস হওয়া প্রশ্নের সঙ্গে ৭২টি প্রশ্ন ও উত্তর হুবহু মিলে যায়।

গণমাধ্যমে প্রশ্নফাঁসের সংবাদ প্রকাশ হওয়ায় বিষয়টি অনুসন্ধানের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সামাদকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ওই কমিটি তার অনুসন্ধানে প্রশ্নফাঁসের প্রমাণ পায়। প্রমাণ পাওয়ার পরও কর্তৃপক্ষ ১৬ অক্টোবর ঘ ইউনিটের ফল প্রকাশ করে। এ বছর ঘ ইউনিটে ১৬১৫টি আসনের বিপরীতে আবেদনকারী ছিলেন ৯৫ হাজার ৩৪১ জন। এর মধ্যে পাশ করে ১৮ হাজার পরীক্ষার্থী। প্রশ্নপত্রের বিষয়টি সুরাহা না করে ওই পরীক্ষার ফল প্রকাশ করায় শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ শুরু করে। 

অন্যদিকে পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে আইন অনুষদের তৃতীয় বর্ষের একজন ছাত্র অনশন শুরু করে। সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ ফের পরীক্ষা নেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেয়। ছাত্রলীগ যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে আবার পরীক্ষা নেওয়ার দাবিসহ ৪ দফা দাবি জানায়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী ওই সময় ছাত্রলীগের দাবির বিষয়ে একমত পোষণ করেন। উপাচার্য দেশে এলে তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান।

তবে গত সোমবার উপাচার্য দেশে এসে আজ অধিকতর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। ওই কমিটির প্রধান করা হয় প্রো-উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাসরিন আহমাদকে। কিন্তু ওই কমিটি আগের বছর অনুষ্ঠিত ‘ঘ’ ইউনিটের প্রশ্নপত্র ফাঁসের তদন্তে থাকলেও তারা প্রতিবেদন জমা দেয়নি।

পিডিএসও/তাজ