জাবিতে ‘জালিয়াতি চক্রের’ ২ সদস্য আটক

প্রকাশ : ০৮ অক্টোবর ২০১৮, ১৫:২৭

জাবি প্রতিনিধি
ama ami

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ভর্তি জালিয়াতি চক্রের সদস্য সন্দেহে দুজনকে আটক করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। সোমবার ভোর ৬টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সামনে থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। এ সময় অভিযুক্তদের পাশাপাশি তাদের সঙ্গে আসা এক গাড়ি চালককে আটক করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা অফিস সূত্রে জানা যায়, আটককৃতরা হলেন—আশিক-ই-আতাহার, সাকিব উল সাদাত ও আনোয়ার হোসেন। এদের মধ্যে আশিক ও সাকিব জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং আনোয়ার গাড়িচালক।

সূত্র জানায়, আটককৃত ‘জালিয়াতি চক্রের সদস্যরা’ জাবির ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণে ইচ্ছুক এক শিক্ষার্থীকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ‘সি’ ইউনিটের (কলা ও মানবিকী অনুষদ) প্রথম শিফটের প্রশ্নপত্র দেয়ার প্রলোভন দেখায়। ওই ভর্তিচ্ছু বিষয়টি জাবির দর্শন বিভাগের ৪২ ব্যাচের শিক্ষার্থী ও শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মাহবুবুর রহমান নীলকে (ওই ভর্তিচ্ছুর পূর্ব পরিচিত) বিষয়টি জানায়। তাৎক্ষণিক নীল বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর সিকদার মো. জুলকারনাইনকে অবহিত করেন। পরে তিনি অভিভাবক সেজে ওই জালিয়াত চক্রের সদস্যদের সঙ্গে প্রায় ৫ লাখ টাকার বিনিময়ে প্রশ্নপত্র নেয়ার চুক্তি করেন। সে অনুযায়ী জালিয়াতি চক্রের দুই ‘সদস্য’ একটি মাইক্রোবাস যোগে গভীর রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ে আসেন। পরে ভোর ৫টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সামনে গেলে মাহবুবুর রহমান নীলের নেতৃত্বে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাদেরকে আটক করেন। এ সময় তাদের মারধর করা হয়। পরে ৬টার দিকে তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যদের হাতে তুলে দেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। তবে আটককৃতদের পাশপাশি ওই চক্রের এক ‘হোতা’ বিশ্ববিদ্যালয়ে আসলেও পালিয়ে যেতে সক্ষম হন।

মাহবুবুর রহমান নীল বলেন, জালিয়াতি চক্রের সদস্যদেরকে ভোর ৫টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সামনে থেকে ধরি। পরে প্রক্টর স্যারকে ডেকে স্যারের হাতে তুলে দেই। আশিক-ই-আতাহার ও সাকিব উল সাদাত টাকার বিনিময়ে ‘প্রশ্নপত্র’ দেয়ার চুক্তির বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তবে আনোয়ার হোসেন বলেছেন, তিনি উবারের গাড়িচালক। তিনি তাদেরকে চিনতেন না।

প্রক্টর সিকদার মো. জুলকারনাইন বলেন, আটককৃতরা প্রশ্নপত্র দেয়ার নামে এক ভর্তিচ্ছুর সঙ্গে প্রতারণা করছিল। আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সার্বিক সহযোগিতায় তাদেরকে আটক করেছি। আটককৃতদেরকে বিকালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বিচার করা হবে।

পিডিএসও/হেলাল