হাবিপ্রবিতে বাটির খাবার খেয়ে হাসপাতালে ১৮ শিক্ষার্থী

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০১৮, ১৩:৫৩

দিনাজপুর প্রতিনিধি

দিনাজপুরে হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) বাইরের বাটি সার্ভিসের খাবার খেয়ে ৪০ শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এদের মধ্যে ১৮ জনকে দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, গত মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের জিয়া হলের ক্যান্টিন পরিচালনাকারী তরিকুল ইসলামের সরবরাহ করা খিচুড়ি, ব্রয়লার মুরগির মাংস ও আলু ভর্তা খান ৬০ শিক্ষার্থী। এই খাবার খাওয়ার পর থেকে তাদের অনেকের বমি ও পেটে ব্যাথা দেখা দেয় এবং ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হন। কেউ কেউ জ্বরেও আক্রান্ত হন। এ ঘটনার পর শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন সেন্টারে চিকিৎসা নেন।

বুধবার হাবিপ্রবির মেডিকেল সেন্টার চিকিৎসা নেয়ার পরও তাদের অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় রাত ৮টার পর থেকে রাত ১২টার মধ্যে ১৮ শিক্ষার্থীকে দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 

দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন কনসালটেন্ট ডা. ওয়াহেদুল হক জানিয়েছেন, ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা সবাই খাবারের বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত। তারা বর্তমানে পেটের ব্যথা, ডায়রিয়া, বমি ও জ্বরে আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন। তাদেরকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তবে সবাই আশঙ্কামুক্ত বলে জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের কর্তব্যরত সিনিয়র স্টাফ নার্স ও ডায়রিয়া ওয়ার্ডের ইনচার্জ সুফিয়া বেগম জানান, বর্তমানে সবার অবস্থা উন্নতির দিকে। অবস্থার উন্নতি হওয়ায় তাদের মধ্যে ইতোমধ্যে ৩ জনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। 

হাসপাতালে ভর্তি ফিসারিজ বিভাগের ২ শিক্ষার্থী জানান, বাইরের খাবার বন্ধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যান্টিন চালু করলে শিক্ষার্থীদের এ অবস্থা হতো না। তাই বাইরের সার্ভিস বন্ধ করে দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যান্টিন চালুর দাবি জানিয়েছেন।  

এদিকে এর আগে গত ৩ আগস্ট ওই ক্যান্টিনের খাবার খেয়ে অন্তত ২৫ শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েন। এদের মধ্যে ১০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

পিডিএসও/তাজ