মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও শিশু দিবস উদযাপন

প্রকাশ : ১৮ মার্চ ২০১৮, ০০:০০ | আপডেট : ১৮ মার্চ ২০১৮, ১৭:৩৭

অনলাইন ডেস্ক

ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের আয়োজনে এবং আরাবি ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সহযোগিতায় গতকাল শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়াম, মিরপুর, ঢাকায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন এবং জাতীয় শিশু দিবস-২০১৮ উদযাপন উপলক্ষে স্মরণকালের শিশু সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা এবং পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে ঢাকা মহানগরের শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৬ হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ। অতিথি ছিলেন শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের সাধারণ সম্পাদক, লায়ন মুজিবুর রহমান হাওলাদার এবং কেন্দ্রীয় বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার সভাপতি মিয়া মনসফ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএসবি-ক্যামব্রিয়ান এডুকেশন গ্রুপের চেয়ারম্যান লায়ন এম কে বাশার পিএমজেএফ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে আ স ম ফিরোজ বলেন, বঙ্গবন্ধুর হৃদয় ছিল পবিত্র শিশুর মতো। তিনি শিশুদের অত্যন্ত ভালোবাসতেন। এমন একজন মহান নেতার জন্ম না হলে বাংলাদেশ হতো না। অবিসংবাদিত এই নেতার জন্মদিনকে জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে পালিত হওয়ার মধ্যে চমৎকার এক সংযোগ স্থাপিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু এখন শুধু দেশে নয়, বিশ্ববাসীর কাছে প্রিয় নেতা। প্রিয় নেতা ভবিষ্যৎ কা-ারি শিশুদের কাছেও। অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন শিক্ষাবিষয়ক ব্যক্তিত্ব, শিক্ষা সংস্কারক এবং বিএসবি-ক্যামব্রিয়ান এডুকেশন গ্রুপের চেয়ারম্যান লায়ন এম কে বাশার বলেন, শিশু-কিশোরদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করা এবং এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে আরো গভীরভাবে জানার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুকে জানতে হবে, শিশুদের জানাতে হবে। নইলে নতুন প্রজন্মের কাছে বাংলাদেশের ইতিহাস অজানা থেকে যাবে। ইউনেসকো কর্তৃক স্বীকৃত ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে জাতীয় পাঠ্যপুস্তক কারিকুলামে শ্রেণিভেদে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য তিনি সরকারের কাছে আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে ঢাকা মহানগরের শতাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে এবং পুরস্কারপ্রাপ্তদের মধ্যে পুরস্কার ও সনদপত্র বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জীবনীর ওপর প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। দ্বিতীয় পর্বে ক্যামব্রিয়ান কালচারাল একাডেমির মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।-সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

"