করোনায় অনিশ্চয়তা

ঢাকা ছাড়ছেন বেকাররা

প্রকাশ : ২৮ জুন ২০২০, ১০:০৩

নিজস্ব প্রতিবেদক

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বে দেখা দিয়েছে অর্থনৈতিক মন্দা। যার প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশেও। অনেকেই চাকরি হারিয়েছেন। কারো আবার কমে গেছে বেতন, কারো বন্ধ হয়েছে ব্যবসা। সর্বোপরি চরম এক অনিশ্চয়তা ভর করেছে ব্যাপক সংখ্যক মানুষের জীবনে। জীবনধারণে প্রয়োজনীয় অর্থের জোগান সৃষ্টি করতে না পারার গ্লানি নিয়ে তারাই এখন ঢাকা ছেড়ে বাধ্য হচ্ছেন গ্রামে ফিরতে। ভাগ্য বিড়ম্বিত এসব ভুক্তভোগীরা বলছেন, সবার গ্রামে ফিরে যাওয়ার কারণ প্রায় একই রকম।

বনশ্রীতে স্ত্রী ও দুই সন্তান নিয়ে বসবাস করা রাজু আহমেদ একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করতেন। করোনার সংক্রমণ শুরু হলে প্রথম মাসে তাকে অর্ধেক বেতন দেওয়া হয়। তারপরের মাসে অর্ধেকের অর্ধেক বেতন দেওয়া হয়। এই টাকায় বাড়িভাড়া দেওয়ার পর পরিবার নিয়ে চলতে কষ্ট হচ্ছিল। ধারদেনা করে এত দিন চললেও এখন পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। তাই গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ীর বেলগাছিতে ফিরে যাচ্ছেন।

ঢাকার মিরপুরের রূপনগরে বসবাস করতেন আশরাফ হোসেন। একটি কোম্পানিতে করতেন চালকের কাজ। এখন তার কাজ পুরোটাই বন্ধ। প্রতি মাসে ১১ হাজার টাকা বাড়িভাড়া দিতে হয়। কিন্তু এখন সেই পরিমাণ অর্থ উপার্জন করা প্রায় অসাধ্য হয়ে গেছে। তাই তিনিও পরিবার নিয়ে ফরিদপুরের আটরশিতে গ্রামের বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। গ্রামে থাকলে প্রতি মাসে বাড়িভাড়ার টাকা নিয়ে অন্তত দুশ্চিন্তা করতে হবে না।

আবার কবে ঢাকায় ফিরবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, কবে ফিরব কিংবা আদৌ ফিরতে পারা কিনা সেটাও জানি না। এ সময় চোখ ঝাপসা হয়ে না উঠলেও একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলেন আশরাফ হোসেন। মুখমন্ডলে তার ভেসে ওঠে এক অনিশ্চয়তার ছাপ।

শুধু রাজু কিংবা আশরাফ নয়, এমন আরো শত শত মানুষকে ঘাট এলাকায় ফেরির জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যায়। তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বর্তমানে চরম হতাশা আর অভাবের মধ্যে দিয়ে দিন কাটছে। আর সেই অভাব থেকে কিছুটা হলেও মুক্তির আশায় গ্রামমুখী হচ্ছেন।

এ দিকে বছরের মাঝখানে ঢাকায় ছাড়ায় তাদের সন্তানদের লেখাপড়াও অনিশ্চয়তার মধ্যে চলে যাচ্ছে। গ্রামে গিয়ে কোনো স্কুলে ভর্তি হতে গেলেও অন্তত আগামী বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। শহরে বেড়ে ওঠা এসব শিশুরা গ্রামের পরিবেশে কতটুকু মানিয়ে নিতে পারবে, সেটাও ভাবিয়ে তুলছে তাদের।

পাটুরিয়া ঘাটে দায়িত্বরত ট্রাফিক সার্জেন্ট গোলজার হোসেন বলেন, আমি ছোট-বড় পিকআপ এবং ট্রাক মিলে ৫০টির বেশি গাড়ি পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট পার হতে দেখেছি। অনেক গাড়ি এখনো টিকিট কেটে নদী পার হওয়ার জন্য অপেক্ষায় আছে। করোনার কারণে অনেকে ঢাকা ছেড়ে গ্রামে চলে যাচ্ছে বলেই মনে হচ্ছে।

পিডিএসও/হেলাল