নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ

প্রকাশ : ০১ জুলাই ২০১৯, ১৯:২০ | আপডেট : ০১ জুলাই ২০১৯, ২০:০৯

ইংল্যান্ড-ভারত ম্যাচের ফলাফল দেখে নয়, বরং ভারতের খেলা দেখেই হতাশ হয়েছি। এই হতাশা বাংলাদেশ ছাড়িয়ে এখন গোটা এশিয়াতে। খোদ ভারতীয়রাই এই হারকে মেনে নিতে পারছে না বলে আন্তর্জাতিক মিডিয়াতে খবর প্রকাশ হয়েছে। তাই এটাকে আমিও হার বলতে পারছি না। ক্রিকেট খেলা এখন সবাই বুঝে। তোমরা ব্যাট হাতে মাঠে নেমে টেস্ট খেলবা আর দর্শক বুঝবে না, এরকম ভাবাটাই বোকামি। কোহলি, ধোনিদের কাছে এই কৈফিয়ত কে চাইবে?

গতকালের ম্যাচের দিকে তাকিয়ে ছিলো বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা। ইংল্যান্ড হারলে ভারতের সঙ্গে এশিয়ার বাকি তিন দেশের কারো না কারো সেমিফাইনাল খেলার সম্ভাবনা ছিলো। কিন্তু ভারতীয় খেয়োয়াড়রা যে খেলা উপহার দিয়েছে তাতে করে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। যে মাঠে খেলা হয়েছে সে মাঠে তিনশ’র অধিক রান হবে সেটাই স্বাভাবিক। হয়েছেও তাই। কিন্তু ভারত হেরেছে মাত্র ৩১ রানে। প্রথম ১০ ওভারে মাত্র ২৮ রান। যেখানে বিরাট কোহলি ও রোহিত শর্মার মতো ব্যাটসম্যান ক্রিজে। আর শেষ ৩২ বলে মাত্র ৩৯ রান। ধোনি তখন ক্রিজে। অথচ পরবর্তী ব্যাটসম্যানরা প্যাভিলয়নে বসে নিশ্চিন্তে খেলা দেখছে।

এই খেলা দেখে কি কেউ বিশ্বাস করতে চাইবে ভারত ম্যাচ জেতার জন্য খেলেছে? ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং করা দেখে মনে হয়েছে তারা টেস্ট খেলছে। জয়ের জন্য খেলেছে তা তাদের ব্যাট চালানো দেখে মনে হয়নি। বাংলাদেশি সমর্থকরা আজ সারাদিন এনিয়ে কূট মন্তব্য করতেও ছাড়েনি। সকালে চায়ের দোকানে চা খেতে বসে শুনতে হলো- .......বাচ্চারা ইচ্ছে করেই হারছে। ভারত ইচ্ছে করে হেরেছে। যেনো বাংলাদেশ, পাকিস্তান কিংবা শ্রীলঙ্কা কেউ সেমিতে উঠতে না পারে। ইংল্যান্ডকে জিতিয়ে দিয়েছে বাজে খেলা খেলে। এ যেন নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করা।

কিন্তু ভারতীয়রা এটা ভুলে গেছে- অতি চালাকের গলায় দড়ি। তাদের পরের ম্যাচ বাংলাদেশের সঙ্গে। যা মঙ্গলবার ওই মাঠেই অর্থাৎ এজবাস্টনে অনুষ্ঠিত হবে। বাংলাদেশ দলের বর্তমান পারফরম্যান্স বিবেচনা করলে, তারা ভারতকে হারানোর সামর্থ্য রাখে। এমনও হতে পারে ভারত বাংলাদেশের কাছে হেরে যাবে। এবং তা হওয়াটাই স্বাভাবিক। কারণ বেশি চালাকি করতে গিয়ে ধরাও খেতে পারে। আর আজকে শ্রীলঙ্কা, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে যে খেলা খেলছে তা ভারতের সঙ্গে খেললে শেষ ম্যাচেও ভারত হেরে যেতে পারে। যদি তাই হয় তাহলে তা হবে ভারতের জন্য উচিত শিক্ষা। 

পয়েন্ট টেবিল বিশ্লেষণ করলে ভারত বিশ্বকাপ থেকে বাদও যেতে পারে। সাত ম্যাচে ১১ পয়েন্ট এবং ০.৮৫৪ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে টেবিলে দ্বিতীয় স্থানে আছে ভারত। পরের দুই ম্যাচে কোহলিদের প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা। ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা, দুই ম্যাচেই যদি ভারত বাজেভাবে হেরে যায় তাহলে বাদ পড়তে পারে ২০১১ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

সেক্ষেত্রে সম্ভাবনা থাকবে বাংলাদেশ অথবা পাকিস্তানের। ভারত যদি দুই ম্যাচে হারে এবং বাংলাদেশ যদি দুই ম্যাচেই জিতে তাহলে ভারতকে টপকে মাশরাফিদের সুযোগ থাকবে শেষ চারের। তখন বাংলাদেশ-ভারতের পয়েন্ট হবে সমান ১১। রান রেটে এগিয়ে কোহলিরা। বাংলাদেশের বর্তমান রানরেট -০.১৩৩। তাই বাংলাদেশকে শুধু জিতলেই হবে না, বড় ব্যবধানে জিতে রান রেটও ভালো করতে হবে।

পিডিএসও/মা