নিরাপদ সড়ক এবং সংস্কার

প্রকাশ : ১১ আগস্ট ২০১৮, ১৪:৪৫

অনলাইন ডেস্ক

কত কিছুই না হয়ে গেল। তবু তার শেষ দেখা গেল না। চলছে তো চলছেই। অনেকে বিষয়টিকে একটি রোগ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। বলেছেন, রোগটি মানসিক। পৃথিবীর যাত্রা শুরুর আগেই এ রোগের প্রাদুর্ভাব। রোগের নাম ‘লোভ’। লোভের কারণেই আমরা আজ পৃথিবীতে। হাবিল-কাবিলের বিসংবাদের মধ্যে আমরা লোভের নিদর্শন খুঁজে পেয়েছি। দেখেছি দখলের প্রবণতা, যা আজকের বিশ্বে অনেকটা মহামারী রূপে প্রকাশ পেয়েছে। আর এই প্রবণতাকে মনোবিজ্ঞানীরা মানবিক নয় বলে আখ্যায়িত করেছেন।

তারা বলেছেন, পাশবিকও নয়। পশুদের স্বাভাবিক প্রবণতাকে যদিও পাশবিক বলা হয়ে থাকে। আদতে তা সত্য নয়। তারা লোভের বশবর্তী হয়ে কারো ওপরে ঝাঁপিয়ে পড়ে না। একমাত্র ক্ষুণ্নিবৃত্তি চরিতার্থকালে তারা পাশবিকতার আশ্রয় নেয়। এর বাইরে তাদের জন্য অন্য কোনো পথ খোলাও থাকে না। যতটুকু প্রয়োজন, ততটুকু গ্রহণের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতেই তারা আগ্রহী। লোভের বশবর্তী হয়ে তারা কখনো কিছু করেছে, এমনটা বিরল।


শিক্ষার্থীদের বিশ্বাস, সড়ক নিরাপদ হলে লোভ ও দখলের মাত্রাও আনুপাতিক হারে কমে আসবে। সম্ভবত সে কারণেই নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে এবার বেশ জোরেশোরে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার


তবে দখলের প্রশ্নে মানুষের সঙ্গে তাদের কিছুটা মিল পাওয়া যায়। পশুরা সংসারের কর্তৃত্ব নিয়ে লিপ্ত হয়েছে যুদ্ধে এবং সে যুদ্ধ কখনোই দলবদ্ধ হয়ে নয়। হয়েছে বা করেছে দ্বন্দ্বযুদ্ধ। যুদ্ধ, ‘রাজায়-রাজায়’। সংসারে তার বিন্দুমাত্র আঁচ লাগেনি।

একমাত্র মানুষ ছাড়া অন্য কোনো প্রাণীকে লোভে নিমজ্জিত হতে দেখা যায়নি। এই লোভ আর দখল মানুষকে কোথায় নিয়ে চলেছে, সম্ভবত কেউ তার খবর রাখে না। এ দুটি শব্দই একদিন এই মানুষ ও মানবসভ্যতার কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকবে, তার নমুনা আজ সর্বত্র। মানুষ আজ নিরাপদ সড়ক চাইছে। ছোট্ট এই চাওয়ার মধ্যেই ঘুমিয়ে আছে এর উত্তর।

প্রশ্ন হচ্ছে, সড়ককে অনিরাপদ করল কে এবং কেন? উত্তরটা খুবই সহজ এবং সোজা। এ দেশে মানবতাবিবর্জিত কিছু মানুষের অমার্জিত লোভের কারণে সড়ক আর নিরাপদ থাকতে পারেনি। লোভ এবং দখল—এ দুটি শব্দ আজ অজগর সাপের মতো বাংলাদেশকে দুমড়ে-মুচড়ে গিলে খাবার চেষ্টা করছে। আর ঠিক এমন একসময়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আন্দোলন সমাজের আপামর জনতাকে আফিমের ঘোর থেকে তুলে এনে বাস্তবতার মুখোমুখি দাঁড় করিয়েছে।

তারা বলেছে, আমরা লোভমুক্ত-দখলমুক্ত বাংলাদেশ চাই। চাই নিরাপদ সড়ক। এসব শিক্ষার্থীর বিশ্বাস, সড়ক নিরাপদ হলে লোভ ও দখলের মাত্রাও আনুপাতিক হারে কমে আসবে। সম্ভবত সে কারণেই নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করতে এবার বেশ জোরেশোরে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আমরাও আশা করি এ উদ্যোগ সফল হবে। চলতে-চলতে থমকে দাঁড়াবে না। কোনো অপশক্তিই এর গতিরোধে সক্ষম হবে না।

পিডিএসও/হেলাল