জুয়ার আসরে ডিবি পুলিশের কাছে ধরা খেল ২৭ পেশাদার জুয়ারী

প্রকাশ : ০২ জুন ২০২০, ১৯:৪০

ত্রিশাল(ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

পেশাদার জুয়ারী হিসেবে পরিচতি জাকির হোসেন স্থানীয় প্রভাবশালী মহলকে ম্যানেজ করে দীর্ঘদিন যাবত ওয়ানটেন নামে জুয়া চালিয়ে আসছিলেন। করোনার লকডাউন আর  রমজানের রোজাও এ জুয়ারীদের থামতে দেখা যায়নি। জুয়া খেলতে গিয়ে ময়মনসিংহের ত্রিশালে ডিবি পুলিশের হাতে ধরা খেল ২৭ পেশাদার জুয়ারী। সোমবার বিকেলে গ্রেফতার করে মঙ্গলবার দুপুরে এদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়। এদের মধ্যে সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তারা আছেন বলে জানান আইনশৃংখলা বাহিনী। এসময় তাদের কাছ থেকে তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা ও জুয়া খেলার সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, ত্রিশালে উপজেলা সদরের বাসস্ট্যান্ড থেকে একশত মিটার দুরে গুলশান সিনেমা হলের পরিত্যক্ত ভবনে স্থানীয় প্রভাবশালীদের ম্যানেজ করে দীর্ঘদিন যাবত ওয়ানটেন জুয়ার আসর চালিয়ে আসছিলেন পেশাদার জুয়ারী জাকির হোসেন। সোমবার বিকেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালায় ময়মনসিংহ জেলা ডিবি পুলিশের এসআই আনোয়ার ও এসআই দেবাশীষের নেতৃত্বে একটি টিম। এ সময় জুয়া খেলার সময় সরকারি কর্মকর্তাসহ মোট ২৭ জন জুয়ারীকে গ্রেফতার করে। এদের মধ্যে মাদারীপুর জেলার জাকির হোসেন, গাজীপুর জেলার আরমান ওরফে আমান, শেরপুর জেলার শরীফুল ইসলাম জনি, মান্নান, ময়মনসিংহের ভালুকার কামরুল ইসলাম, সাহাব উদ্দিন, জুয়েল, ত্রিশালের আনিছুর রহমান স্বপন, রফিকুল, কামাল হোসেন, হুমায়ুন কবীর, মেখ মিরাজ, আক্কাছ আলী, কিশোরগঞ্জ জেলার মমিন মিয়া, নেত্রকোনা জেলার শাখওয়াত হোসেন রাসেল, সাদির উদ্দিন, ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার জজ মিয়া, শহীদুল, ময়মনসিংহের গৌরীপুরের চানু, হারুন, মোস্তাফিজুর রহমান, নারায়ন ঘোষ, ময়মনসিংহ সদরের রমজান আলী, গাজীপুর জেলার আবুল কালাম, সুরুজ, আক্তার, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আ: রশিদ।

গ্রেফতারকৃত আসামিদের মঙ্গলবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। জুয়ারীদের কাছ থেকে তিন লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা ও জুয়া খেলার সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়। 

ময়মনসিংহ জেলা ডিবি ওসি শাহ কামাল আকন্দ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ত্রিশালের গুলশান সিনেমা হলে জুয়া খেলার সময় ২৭ জুয়ারীকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। মাদক জুয়া বন্ধে ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশের এ অভিযান অব্যহত থাকবে।