রূপগঞ্জে যুবককে গলাকেটে হত্যা

মাদক কারবারিদের সঙ্গে দ্বন্দের জের

প্রকাশ : ৩০ মে ২০২০, ১৫:০৭

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে মাদক কারবারিদের সঙ্গে দ্বন্দের জের ধরে রাজন নামের এক যুবককে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করছে নিহত যুবকের পরিবার। গতকাল শুক্রবার রাতে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ১৬ দিন পর রাজনের মৃত্যু হয়।

এর আগে গত ১৩ মে উপজেলার তারাব পৌরসভার রূপসী কলাবাগান এলাকায় দুর্বৃত্তরা মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে গলাকেটে ফেলে রেখে চলে যায়। নিহত রাজন সোনারগাঁও উপজেলার আমগাওঁ এলাকার তোফাজ্জল মিয়ার ছেলে। 

নিহতের মামা আলতাফ কাজী জানায়, রূপগঞ্জ উপজেলার কাজীপাড়া এলাকায় রাজনের মামার বাড়ি। রাজন সেখানেই থাকতেন। রাজন রূপসী এলাকায় জনকল্যাণ নামে একটি সমবায় সমিতি পরিচালনা করতো। এ কারণে রূপসীর বিভিন্ন এলাকায় তার কিছু সমিতির গ্রাহক ছিল। কলাবাগান এলাকার একটি সংঘবদ্ধ মাদক কারবারি চক্র পেশা গোপন করে তার কাছ ঋণ নেয় বলে জানা যায়। এ ঋণের টাকা পরিশোধ করা নিয়ে মাদক কারবারি চক্রটির সঙ্গে বিরোধের সৃষ্টি হয়।

গত ১৩ মে সন্ধ্যায় ইফতারের পর মোবাইল ফোনের মাধ্যমে রাজন ডেকে নিয়ে ওই মাদক ব্যবসায়ী চক্রটি তাকে গলাকেটে হত্যার চেষ্টা চালায়। পরে স্থানীয়রা শব্দ শুনতে পেয়ে রাজনকে গুরুতর অবস্থায় প্রথমে স্থানীয় লাইফ এইড হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করান। রাজনের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকরা সোহরাওয়ার্দী হৃদরোগ হাসপাতালে পাঠান। পরে ২৯ মে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

পরিবারের লোকজন দাবি করছেন, মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বিরোধের জের ধরে রাজনকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা তোফাজ্জল মিয়া বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দেন।

স্থানীয়রা জানান, রূপসী কলাবাগান এলাকাটি নির্জন ও সুনশান হওয়া এটি মাদক কারবা ও মাদকসেবীদের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। এখানে সন্ধ্যার পর থেকে মাদকের আসর বসতে শুরু করে মধ্যরাত পর্যন্ত আসর চলতে থাকে। এছাড়া রাতের বেলা কলাবাগানের রাস্তায় দিয়ে সাধারণ মানুষ আসা যাওয়ার সময় প্রায় ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। মাদক কারবাািরদে দৌরাত্ম্য কমাতে স্থানীয় লোকজন পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিদের জানালো কোন প্রতিকার পাননি। এ কারণে দিনদিন মাদক কারবারিদের দৌরাত্ম্য আরও বাড়ছে।

পিডিএসও/তাক