বন্দুকযুদ্ধে নরসিংদীতে ডাকাত ও কক্সবাজারে রোহিঙ্গা যুবক নিহত

প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১৭:৪১

নরসিংদী ও কক্সবাজার প্রতিনিধি

নরসিংদীর শিবপুরে পুলিশের সঙ্গে ডাকাত সর্দার এবং কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক রোহিঙ্গা মাদক কারবারি নিহত হয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো রিপোট।

নরসিংদী : নরসিংদীতে পুলিশের সঙ্গে ডাকাতদলের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রাজ্জাক মিয়া (৩৯) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। পুলিশ বলেছে, রাজ্জাক মিয়া একজন আন্তঃজেলা ডাকাত সর্দার, তার বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতি ও দ্রুত বিচার আইনে ১৬টি মামলা রয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শিবপুর উপজেলার তেলিয়া শ্মশান ঘাটে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। পরে সেখান থেকে একটি বন্দুক, পাঁচ রাউন্ড তাজা গুলি ও চারটি রাম দা উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন তিন পুলিশ সদস্য। তারা হলেন এসআই মনির হোসেন, কনস্টেবল মশিউর রহমান ও আনিসুর রহমান। নিহত রাজ্জাক শিবপুর উপজেলার ধানুয়া গ্রামের মৃত রফিজ উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ জানায়, বিশেষ অভিযানের অংশ হিসেবে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ধানুয়া গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে রাজ্জাক মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। পরে রাতে তাকে নিয়ে সহযোগীদের গ্রেফতার ও অস্ত্র উদ্ধারে যায় পুলিশ। এ সময় রাজ্জাকের দেওয়া তথ্যমতে তেলিয়া শালুরদিয়া শ্মশান ঘাট এলাকায় অভিযান চালাতে গেলে, সেখানে তার সহযোগীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে কয়েক রাউন্ড গোলাগুলি হয়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায় রাজ্জাক। শিবপুর থানার ওসি মোল্লা আজিজুর রহমান এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কক্সবাজার : কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে মাদক কারবারিদের ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক রোহিঙ্গা যুবক নিহত হয়েছেন। এ সময় ১ লাখ ২০ হাজার পিস ইয়াবাসহ দেশীয় অস্ত্র ও কার্তুজ উদ্ধার করা হয়। গত বৃহস্পতিবার শেষরাতে টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের লেদাস্থ নাফ নদী সংলগ্ন ছ্যুরি খালে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত নুর কবির (২৮) মিয়ানমারের মোতালেবের ছেলে। পাচারকারীদের গুলিতে দুই বিজিবি সদস্যও আহত হয়েছেন।

টেকনাফ দুই বিজিবি অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. ফয়সাল হাসান খান জানান, ছ্যুরি খালে কিনারায় কেওড়া বাগানের ভেতরে কয়েকজন ব্যক্তি কাদা-মাটিতে গর্ত খুঁড়ছিল।

এ সময় বিজিবির নিয়মিত টহলদল টর্চের আলোতে দেখতে পেয়ে তাদের চ্যালেঞ্জ করলে কালো পলিথিন মোড়ানো বস্তা নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। বিজিবি জওয়ানরা তাদের পিছু ধাওয়া করলে ইয়াবা কারবারি দল অতর্কিতভাবে বিজিবির ওপর এলোপাতাড়ি গুলি বর্ষণ করে। এ সময় দুজন বিজিবি সদস্য আহত হন। আত্মরক্ষার্থে বিজিবিও পাল্টা গুলি বর্ষণ করলে উভয় পক্ষের মধ্যে প্রায় সাত থেকে আট মিনিট গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে।

তিনি আরো জানান, কিছুক্ষণ পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে ঘটনাস্থল তল্লাশি চালিয়ে এক ব্যক্তিকে গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে থাকতে দেখে বিজিবি সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে টেকনাফ হাসপাতালে নিয়ে যায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। সেখানে পৌঁছার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার (রোহিঙ্গার) পকেটে থাকা পরিচয়পত্র দেখে সে মিয়ানমারের নাগরিক নুর কবির বলে শনাক্ত করা হয়।

এ ছাড়া ঘটনাস্থল হতে ১ লাখ ২০ হাজার পিস ইয়াবা, দেশীয় তৈরি একটি বন্দুক ও দুই রাউন্ড তাজা কার্তুজ উদ্ধার করতে সক্ষম হয় বিজিবি। বিজিবির এই কর্মকর্তা আরো জানান, মাদক কারবারি অন্যরা দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ায় কোনো ধরনের তথ্য জানা সম্ভব হয়নি। সংঘটিত ঘটনার ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

পিডিএসও/তাজ