গাজীপুরে গলাকেটে নারী খুন, তরুণ গ্রেফতার

প্রকাশ | ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ১৯:০১

গাজীপুর প্রতিনিধি

গাজীপুরের শ্রীপুরে গলা, হাত ও পায়ের রগকেটে জান্নাতুর আক্তার (১৯) হত্যার ঘটনায় এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার তাকে ময়মনসিংহের ভালুকা মাস্টারবাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত পলাশের (২৫) তথ্য মতে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ১টি চাকু উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পলাশ ময়মনসিংহের ভালুকা থানার মনোহরপুর গ্রামের শহীদ উদ্দিনের ছেলে।

গাজীপুর পুলিশ সুপার কার্যালয়ের বিশেষ শাখার পরিদর্শক মোমিনুল ইসলাম জানান, গাজীপুরের শ্রীপুর থানার জাহাঙ্গীরপুর এলাকার আল আমিনসহ অজ্ঞাত ৩/৪ আসামি গত ৩১ ডিসেম্বর বিকেল সাড়ে ৫টা থেকে ৬ জানুয়ারি সকাল ১১ টার মধ্যে যে কোনও সময় তার (আল আমিন) দ্বিতীয় স্ত্রী জান্নাতুর আক্তারকে পুর্বপরিকল্পিতভাবে গলা ও হাত-পায়ের রগ কেটে হত্যা করে। 

পরে লাশ গুম করার উদ্দেশ্যে শ্রীপুর থানার যোগিরসিট এলাকার একটি বেগুন ক্ষেতের পাশে জঙ্গলে ফেলে পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে নিহতের ভাই কামাল শ্রীপুর থানায় মামলা করেন। পরে গাজীপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহারের নির্দেশনা অনুয়ায়ী মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শহিদুল ইসলাম মোল্লা ময়মনসিংহের ভালুকা মাস্টারবাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে পলাশকে গ্রেফতার করে। পলাশের দেখানো মতে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ১টি চাকু তার বাড়ির সামনের পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৬ জানুয়ারি বেলা ১১টার দিকে যোগিরসিট এলাকা থেকে জান্নাতুর আক্তারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। জান্নাতুর আক্তার ময়মনসিংহের ভালুকা থানার মনোহরপুর গ্রামের আবুল হোসেনের মেয়ে।

নিহতের ভাই কামাল ওই সময় জানিয়েছিলেন, প্রায় এক বছর আগে জান্নাতুর ভালবেসে আল আমিনকে বিয়ে করে মাস্টারবাড়ি এলাকায় ভাড়া থাকত। বিয়ের পর থেকে আল আমিনও তাদের বাসায় যায়নি কিংবা তাদের বাসার কেউ আল আমিনের বাসায় যায়নি। আল আমিনের পূর্বের স্ত্রী-সন্তান রয়েছে। মাসখানেক আগে আলামিন ২০ হাজার টাকা চায় তা তারা দিতে পারেনি। ঢাকায় চাকরি হয়েছে জানিয়ে সম্প্রতি আল আমিন ওই বাসা ছেড়ে দিয়ে জান্নাতকে তাদের বাড়ি বেড়াতে পাঠায়। গত ৩১ ডিসেম্বর আল আমিন আত্মীয় বাড়িতে বেড়ানোর কথা বলে জান্নাতকে নিতে আসে। এদিন তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে বিকেলে আলামিন জান্নাতুকে নিয়ে যায়। এরপর জান্নাতের মোবাইলে ফোন করলে প্রথমে আলামিন ফোন ধরে জান্নাতুর বেড়াচ্ছে জানালেও পরের তিন দিন যাবৎ ওই ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। পরে ৬ জানুয়ারি সকালে যোগিরসিট এলাকা থেকে তার জান্নাতুর আক্তারের গলা ও হাত-পায়ের রগকাটা লাশ উদ্ধার হয়।

পিডিএসও/অপূর্ব