চট্টগ্রামে বন্দুকযুদ্ধে মাদক কারবারি নিহত

৪ র‌্যাব সদস্য আহত, অস্ত্র-মাদক উদ্ধার

প্রকাশ : ১২ অক্টোবর ২০১৮, ১৯:৪২

চট্টগ্রাম ব্যুরো
বন্দুকযুদ্ধে নিহত অসীমের ফাইল ছবি

চট্টগ্রামে র‌্যাবের অভিযানে অসীম রায় বাবু ওরফে ডাইল বাবু (৩৯) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে নগরীর মুরাদপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। 

এ ঘটনায় গুলিতে আহত হয়েছেন র‌্যাবের চার সদস্য। তারা হলেন- স্কোয়াড্রন লিডার সাফায়েত জামিল ফাহিম, মেজর মেহেদী হাসান, সৈনিক আরিফ ও ল্যান্স কর্পোরাল শহীদ। তাদের চট্টগ্রাম সেনানিবাসের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়েছে। 

ঘটনাস্থল থেকে বিপুল পরিমান ইয়াবা ও একটি পিস্তল উদ্ধার করেছে র‌্যাব। নিহত বাবু বাঁশখালী উপজেলার পূর্ব চাম্বল গ্রামের গুরুসদয় রায়ের ছেলে। তার বিরুদ্ধে নগরীর কোতোয়ালী থানায় তিনটি মামলা রয়েছে, এর মধ্যে দুইটি মাদক মামলা।

অসীম রায় বাবু যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। গত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ৩১ নম্বর আলকরণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদের স্বতন্ত্র প্রার্থীও ছিলেন তিনি।

র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক মিমতানুর রহমান বলেন, মুরাদপুর এক নম্বর রেল গেইট এলাকায় র‌্যাব একটি প্রাইভেটকারকে থামানোর সংকেত দেয়। কিন্তু গাড়িটি না থেমে উল্টো সেখান থেকে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব সদস্যরাও পাল্টা গুলি ছুঁড়ে। এসময় গুলিতে এক মাদক কারবারির মৃত্যু হয়েছে। একই ঘটনায় গুলিতে আহত হন চার র‌্যাব সদস্য। ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল ও ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৪ সালে চট্টগ্রাম নগরীর মিউনিসিপ্যাল মডেল হাইস্কুল থেকে এসএসসি পাস করেন বাবু। এরপর তিনি এমইএস কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন। তখন তৎকালীন মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী ছাত্রলীগের ক্যাডার হিসেবে পরিচিতি পান। ওই বছরই অস্ত্রসহ গ্রেফতারের পর তার সাত বছরের জেল হয়। 

এরপর যুবলীগ নেতা হেলাল আকবর চৌধুরী বাবরের অনুসারী হিসেবে দীর্ঘদিন নগরীর নন্দন কানন, রিয়াজউদ্দিন বাজারসহ আশপাশের এলাকায় একচ্ছত্র আধিপত্য গড়ে তোলেন। তিন বছর আগে বাবরের বন্ধু ও কেন্দ্রীয় যুবলীগ সদস্য জাফরউল্লাহর সাথে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে গ্রুপ ছাড়েন অসীম। এরপর নিজেকে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী যুবলীগ নেতা হিসেবে পরিচয় দিতে শুরু করেন অসীম।

পিডিএসও/এআই