‘মেয়েগুলোর দুষ্টু চাহনিতে কাত হয়েছি আমিও’

প্রকাশ : ০৯ জুলাই ২০১৮, ২১:৪৫

অনলাইন ডেস্ক

‘ছোট্ট মেয়েগুলোর ন্যাকা ন্যাকা কথার সঙ্গে দুষ্টু দুষ্টু চাহনি যে কাউকেই ‘কাত’ (বিভ্রান্ত) করবে অনায়াসেই। তাদের চুরির কাহিনি শুনে কিছু সময়ের জন্য ‘কাত’ হয়েছি আমিও।’ সোমবার (৯ জুলাই) দুপুরে এ কথা জানান, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন।

ওসি বলেন, বয়সে কিশোরী, চেহারায় আধুনিকতার ছাপ। সজ্জায় ধনীর দুলালী হলেও আসলে তারা চোর। চক্রের পুরুষ সদস্য খবর আনে ধনাঢ্য পরিবারের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের। অভিজাত সাজে সেই অনুষ্ঠানে যোগ দেয় মেয়ে সদস্যরা। এরপর সুযোগ বুঝে হাতিয়ে নেয় মোবাইল, ভ্যানটি ব্যাগ, চেইন, টাকাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র।
তিনি জানান, সম্প্রতি নগরে লাভলেনে স্বরনিকা কমিউনিটি সেন্টারে এক বিয়ের অনুষ্ঠানে ঘটে এমনই এক চুরির ঘটনা। চোরের দল কৌশলে এক নারীর কাছ থেকে ভ্যানেটি ব্যাগ হাতিয়ে নেয়। ওই ভ্যানেটি ব্যাগে ছিল মোবাইল ফোনসহ নগদ ২৬ হাজার টাকা।
বিষয়টি জেনে কমিউনিটি সেন্টারে মালিক পক্ষ নজরদারি বাড়ায়। সিসি টিভির ভিডিও ফুটেজ দেখে চোর চক্রটি শনাক্ত করেন তারা। পরে অন্য একদিন আরেকটি অনুষ্ঠানে চোর চক্রের ওই কিশোরী সদস্যদের দেখতে পেয়ে মালিক পক্ষ জানায় ভুক্তভোগীদের, তারা জানায় পুলিশকে। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ এসে চোর চক্রের কয়েকজনকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে।
গ্রেফতারকৃতরা হলো- চট্টগ্রামের দোহাজারীর বাসিন্দা জান্নাত আরা ফেরদৌস (১৬), কক্সবাজারের টেকনাফের রিপা আক্তার (১৪), মহেশখালির হামিদা বেগম (৪০), ফাতেমা বেগম (২৬), তার মেয়ে সফুরা (১১) এবং নুর হোসেন (১৭)। এরমধ্যে রিপা, ফাতেমা, হামিদা, সফুরা ও নুর হোসেন আত্মীয়।
পরে তাদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় অভিজাত চোরের পুরো দলকেই। উদ্ধার করা হয় ২৩টি মোবাইল সেট।
ওসি মহসিন বলেন, এই চোর চক্রের মোট সদস্য ছয়জন। এর মধ্যে পাঁচজন মেয়ে ও একজন ছেলে। ছেলেটি ধনাঢ্য পরিবারের ছেলেদের সঙ্গে মিশে তাদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের সংবাদ আনে। আর মেয়েরা সেই অনুষ্ঠানে যায় অতিথি সেজে। অনুষ্ঠানে গিয়েই সবার সঙ্গে মিশে যায়। নাচগানে মাতিয়ে রাখে সবাইকেই। সবাই যখন একটু বেখেয়ালি হন; তখনই তাদের মোবাইল, চেইন, টাকাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে চম্পট দেয় এই চোরের দল।
ওসি জানান, শুধু এরা নয়, চোর চক্রের সঙ্গে জড়িত বাকিদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এছাড়া যারা এসব চোরাই মালামাল কেনে তাদেরকেও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

পিডিএসও/রানা