শিল্পী নাজিব তারেক ও তার নতুন প্রদর্শনী

প্রকাশ : ২১ মে ২০১৬, ১৮:১৯ | আপডেট : ২১ মে ২০১৬, ১৯:০২

অনলাইন ডেস্ক

রংতুলি আর ক্যানভাসে শিল্পসাধনায় অষ্টপ্রহর নিমগ্ন থাকায় বিশ্বাসী শিল্পী নাজিব তারেক। বইয়ের প্রচ্ছদ অলঙ্করণ থেকে শুরু করে সাহিত্য সাময়িকীর সচিত্রকরণ, হাল ফ্যাশনের ট্রেন্ডি টি-শার্ট থেকে বহুজাতিক কোম্পানির ব্র্যান্ড মার্কেটিং সবখানেই তার স্বাচ্ছন্দ্য বিচরণ। সাউথ এশিয়ার প্রথম অনলাইন গ্যালারি জলরং- এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য শিল্পী নাজিব তারেক শুধু ছবিই আঁকেন না; গদ্য-পদ্য রচনায়ও তার দক্ষতার পরিচয় পাওয়া যায়। 
দৈনিক যুগান্তর এবং জনকণ্ঠের সাবেক প্রধান আর্টিস্ট এবং স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের সাবেক ব্র্যান্ড মার্কেটিং কনসালট্যান্ট নাজিব তারেক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ছাত্র ছিলেন। তিনি ১৯৮৭ সালে চারুকলায় প্রিন্টমেকিং বিভাগে ভর্তি হন। সেই শুরু। তারপর থেকে বহু দেশি-বিদেশি দলীয় ও একক প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছেন। শিল্পকে ভালোবেসেছেন শিল্পীসত্তা থেকে।

 

অনেক বছর ধরে বাংলাদেশে গ্রন্থের প্রচ্ছদ ও ইলাস্ট্রেশনকে তিনি একটি অন্যতম শিল্পমাধ্যমে পরিণত করার  সংগ্রামে নিয়োজিত রয়েছেন। যে সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় তার প্রতিটি ইলাস্ট্রেশন হয়ে উঠেছে এক একটি শিল্পকর্ম। ছাত্রাবস্থা থেকে শুরু করে, স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে গণতন্ত্রের লড়াই, জয়নুল জন্মোৎসব, একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূলের লড়াই, পহেলা বৈশাখের শোভাযাত্রা এমন অনেক দেশীয় সংস্কৃতি এবং জাতীয় ইস্যুতে তিনি সর্বদা সক্রিয়। আশির দশক থেকে শিল্পের দিনপঞ্জি ঘাঁটলে দেখা যায় এমন কোনো সামাজিক-সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক আন্দোলন নেই যেখানে তার উদ্যমী ভূমিকা  যুক্ত নয়।
আর্ট গ্যালারির পাশাপাশি নাজিব তারেক অনলাইনেও চালিয়ে যাচ্ছেন তার শিল্পকর্ম। দেশের প্রথম শৈল্পিক ট্রেন্ডি টি-শার্ট ব্যবহার আন্দোলনের অগ্রস্থানে রয়েছেন তিনি। পাশাপাশি সর্বপ্রথম বাংলাদেশের অনলাইন গ্যালারির উদ্যোক্তা। 
প্রতিদিনের সংবাদের সঙ্গে আলাপকালে শিল্পী নাজিব তারেক জানান, সামাজিক মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে এ প্রজেক্টটির সূচনা হয় ২০১৫ সালের জুলাই মাসে। সেদিন থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত  প্রায় হাজারের বেশি শিল্পকর্ম পোস্ট করেছেন অনলাইনে। সিরিজটি একটি কনসেপচুয়াল আর্ট প্রজেক্ট, যেটা এমন একটি বিষয় তুলে ধরে যা আমরা দেখেও দেখি না। 

‘আর্ট মেকস আস হিউম্যান’ শিল্পী নাজিব তারেকের একটি চলমান অনলাইনভিত্তিক শিল্পকর্ম প্রকল্প। এই শিরোনামেই গত রোববার থেকে প্রথমবারের মতো মোহাম্মদপুরের সিক্স বাই সিক্স গ্যালারিতে শুরু হয়েছে প্রকল্পের প্রদর্শনী। দর্শনার্থীদের জন্য ১৫ দিনব্যাপী এই প্রদর্শনী চলবে ২৫ মে পর্যন্ত। প্রদর্শনীর সময় প্রতিদিন বিকেল ৪টা থেকে  রাত ১০টা।
প্রদর্শনীতে প্রতিদিন বিকেলে একজন করে শিল্পী ও কবি নাজিব তারেকের শিল্পকর্ম নিয়ে আলোচনা করছেন। প্রথম দিনের প্রদর্শনীতে নাজিব তারেকের শিল্পকর্ম নিয়ে আলোচনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের সাবেক ডিন ও চিত্রশিল্পী আবুল বারক্ আলভী। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন কান্তিদেব অধিকারী, সায়েদ তারেক রাহমান, দীপ্তি রানী দত্ত, কৃষ্ণা চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ। 
শিল্পী এই প্রজেক্টটি সাজাতে নিজের আঁকা পুরনো এবং নতুন অলংকরণ ব্যবহার করেছেন। পত্রপত্রিকা ও বইয়ের অলংকরণ আকারে শিল্প আমাদের দৈনন্দিন জীবনে একটি বিশাল অংশ জুড়ে থাকে। নাজিব তারেক শিল্পের জাল বুনেন, পড়ে থাকেন শিল্পসাধনে। তিনি বিশ্বাস করেন শিল্পই আমাদের মানুষ করে।


গ্রন্থনা : জিনাত জান কবীর