বইমেলায় ‘আরশজানের বায়স্কোপ’

প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৭:০৬ | আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৯:২০

সাজ্জাদুর রহমান

সময় এখন বইবসন্তের। তাই নতুন নতুন বইয়ের সোঁদাগন্ধে মৌ মৌ সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। মুগ্ধ বইপোকাদের দল। সেই মুগ্ধতায় বইমেলায় এলো তরুণ লেখক আমিনুল ইসলাম হুসাইনীর ‘আরশজানের বায়স্কোপ’।

বইটির ফ্ল্যাপে কবি ও সাংবাদিক আবিদ আজম লিখেছেন, কয়েকটি ফুলেল-মাটিগন্ধ্যা গল্প নিয়ে লেখক সাজিয়ে তুলেছেন তার পাণ্ডুলিপি। এসব গল্পের শরীরজুড়ে তারুণ্য, সমাজ আর জীবনের অলৌকিক ঘ্রাণ-অঘ্রাণ। শিরোনাম গল্পের আরশজান ছাড়াও চরিত্রগুলো যেন আমাদের পরিচিত, অতি আপন কেউ কিংবা জীবনের সঙ্গে-রক্তের সঙ্গে মিশে থাকা কারো ছায়া-প্রতিচ্ছায়া। আমার ধারণা, এই লেখকের পঠন-পাঠন-অনুধাবন আর প্রজ্ঞার অন্তর্দৃষ্টি গভীর। আধুনিক গল্পের প্রায় সকল বৈশিষ্ট্যই আলোচ্য রচনাগুলোতে রয়েছে।

নানা রস ও ধরনের ৮টি গল্প রয়েছে বইটিতে। সেসব গল্পে যেমন আছে ব্যঙ্গাত্মক রসবোধ, তেমনই প্রাধান্য পেয়েছে মানুষ, পরিবার, সমাজ রাজনীতি ও রাষ্ট্রের নানা অসঙ্গতির উপাখ্যান। রয়েছে ধর্মকে বিক্রি করা কতিপয় অমানুষের নির্মমতার খণ্ডচিত্র। মোটকথা, আমরা এখন যে সময়ের পিঠে পা রেখে দাঁড়িয়ে আছি, তারই বাস্তব চিত্র ভেসে উঠেছে আরশজানের বায়স্কোপে। বইটি পড়তে পড়তে পাঠক যেমন শিহরিত হয়ে ওঠবেন, তেমনই হারিয়ে যাবেন ভাবনার গলিতে। বোধের দরজায় ঠক ঠক করে কড়া নাড়বে বিবেক। এটাই লেখকের স্বকীয়তা, সার্থকতা।

সাজিদুল ইসলামের প্রচ্ছদে বইটি প্রকাশ করেছে শাশ্বত প্রকাশন। দাম ১৬০ টাকা। স্টল ৩৩৭-৩৮। ২৫ পার্সেন্ট ছাড়ে বিক্রি হচ্ছে বইমেলা ছাড়াও রকমারি ডটকমসহ অন্যান্য অনলাইন বুকশপে।

পিডিএসও/হেলাল