একুশে আগস্টে হামলার ভয়াবহতা নিয়ে শিল্পকলায় স্থাপনা শিল্প

প্রকাশ | ২২ আগস্ট ২০১৯, ১৭:২১ | আপডেট: ২২ আগস্ট ২০১৯, ১৭:৩৩

অনলাইন ডেস্ক

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে গ্রেনেড হামলায় ২৪ জন মানুষকে হত্যা এবং বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যার অপচেষ্টার মধ্য ভয়ঙ্কর ঘৃণিত ঘটনার প্রয়াস চালানো হয়েছিল। যা সর্বস্তরের মানুষকে আতঙ্কিত ও স্তম্ভিত করে। 

এই শোককে শক্তিতে পরিণত করার লক্ষে গতকাল ২১ আগস্ট সন্ধ্যা ৭টায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নন্দনমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয়েছে স্থাপনা শিল্প ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিনাশী ধংসযজ্ঞ’।

একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী’র পরিকল্পনায় ৫১ জন শিল্পীর অংশগ্রহণে ২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলার ভয়াবহতা নিয়ে স্থাপনা শিল্পের কিউরেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন শিল্পী ও অধ্যাপক শাহ্‌জাহান আহমেদ বিকাশ।

আসরে প্রদর্শিত স্থাপনা শিল্পে ছিলো, ভয়ার্তচোখ : হ্যান্ড গ্রেনেড এর মুখোসধারী ২১ জন তরুণ শিল্পী ৭০ ফিট কালো ক্যানভাসে আতঙ্কিত চোখ এঁকে তারপর তা রক্তাক্ত লাল করতে থাকে। একটি আতংকিত চোখ অংকনের ভিডিও প্রোজেকশন করা হয় পর্দায়। চিত্রকর্মটি লাইভ আঁকেন শিল্পী শাহ্‌জাহান আহমেদ বিকাশ।

গ্রেনেড বিস্ফোরণের আতঙ্কিত অনুভূতি, বিস্ফোরণের শব্দ হয় এবং ধোঁয়ায় পুরো প্রদর্শনীস্থল ভরে ওঠে। দর্শকদের সাময়িকভাবে ঐ মুহূর্তটুকু অনুভব করানোর জন্য কৃত্রিম রক্ত,পাদুকাসহ অন্যান্য বস্তু ছুড়ে দেওয়া হয়। প্রোজেক্টরের মাধ্যমে ২১ শে আগস্টের আতঙ্কিত মুহূর্তগুলো প্রদর্শন করা হয় । এছাড়া গ্রেনেড হামলার ভয়াবহ ২১টি স্থিরচিত্রের প্রদর্শন করা হয়।

পরে নন্দন মঞ্চে পারফর্মেন্স আর্টের মাধ্যমে হামলার ভয়ানক মুহূর্তটি প্রদর্শন করেন ২১ জন শিল্পী। মঞ্চের চারপাশের চৌবাচ্চাটুকু ধীরে ধীরে লাল রক্ত বর্ণে পরিণত হয়। আতংক বেদনা : ২১ শে আগস্ট আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় গ্রেনেড হামলার পর তার বেদনাময় মুখাবয়বের প্রতিকৃতি আঁকা হয়। চিত্রকর্মের আয়তন ছিল ৬x১০ ফুট। 

দর্শক সম্মুখে অঙ্কিত হয় প্রতিকৃতিটি। চিত্রকর্ম সমাপ্ত হবার পর স্পট লাইট দিয়ে দর্শক সম্মুখে চিত্রকর্মটি উন্মোচন করা হয় এবং ২১ শে আগস্ট ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের বক্তব্য অডিওতে শোনা যায়।

শিল্পকলার অভিনব এ আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে, এম খালিদ এমপি। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন একাডেমির সচিব বদরুল আনম ভূঁইয়া। এবং অনুভূতি ব্যক্ত করেন শিল্পী অধ্যাপক শাহজাহান আহমেদ বিকাশ।

পিডিএসও/তাজ।