রূপসী বাংলা জাতীয় ফটো প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতা

প্রতিদিনের সংবাদের রূপম ভট্টাচার্য সেরাদের একজন

প্রকাশ : ১৩ এপ্রিল ২০১৮, ১৭:১৬ | আপডেট : ১৩ এপ্রিল ২০১৮, ১৭:৪৯

বিশেষ প্রতিবেদক
এই ছবিটিই সেরা হিসেবে বিবেচিত (ইনসেটে রূপম ভট্টাচার্য)

দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদের ফটোসাংবাদিক রূপম ভট্টাচার্য রূপসী বাংলা জাতীয় ফটো প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতা-১৪২৫ এ সেরাদের একজন নির্বাচিত হয়েছেন। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ ঘোষণা দেয়া হয়। 

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে রূপসী বাংলা জাতীয় ফটো প্রদর্শনী ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। ২ দিনব্যাপী এই প্রদর্শনী সকাল ১০ টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সর্ব সাধারণের জন্য উম্মুক্ত থাকবে। 

জানা গেছে, সারা বাংলাদেশ থেকে মোট ১২০ জন প্রতিযোগী এই প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করেন। তাদের প্রেরিত ছবি থেকে বাছাই করে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় হিসেবে ৩জনকে নির্বাচিত করেন নির্বাচকরা। এদের মধ্যে প্রতিদিনের সংবাদের ফটো সাংবাদিক রূপম তৃতীয় হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন।

এ অর্জন নিয়ে রূপম জানালেন, প্রথমে আমি রূপসী বাংলা’র কর্মকর্তা ও বিচারকদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সত্যি কথা বলতে কী, আমি এ ধরণের প্রতিযোগিতায় এই প্রথম অংশ নিয়েছিলাম। আর এবারই প্রথম আমি সেরাদের একজন হতে পেরেছি। এ অর্জন আমাকে আগামীতে আরো ভালো ও সুন্দর ছবি তুলতে অনুপ্রাণিত করবে। এবং ভবিষ্যতে আরো বড় পরিসরে কোনো প্রতিযোগিতায় অংশ নিতেও উৎসাহ যোগাবে। 

প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছেন বাংলাদেশের খবরের ফটো সাংবাদিক এম. মিজানুর রহমান খান ্এবং দ্বিতীয় হয়েছেন দৈনিক সমকালের কাজল হাজরা। 

বিচারক সূত্রে জানা গেছে, উক্ত প্রতিযোগিতায় তিনজনের ছবিকেই সেরা হিসেবে বিবেচিত করা হয়। কিন্তু নিয়ম অনুসারে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় নির্বাচনের জন্য লটারির মাধ্যমে সেরাদের নির্বাচিত করা হয়। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান এমপি, বিশেষ অতিথি প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

এছাড়া জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক হেলেনা জাহাঙ্গীর, বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা ও মহিলা আওয়ামী লীগের গবেষণা ও তথ্য সম্পাদক সৈয়দা রাজিয়া মোস্তফা, বাংলাদেশ ফটোজার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি রফিকুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদ গোলাম মোস্তফা উপস্থিত ছিলেন।